kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ১৩:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় গ্যাস লাইন বিস্ফোরণের ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) এ জেড এম শরীফ হোসেনকে প্রধান করে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, নিহতদের প্রত্যেকের পরিবার ২০ হাজার টাকা পাবে। আহতদের চিকিৎসা ব্যয় জেলা প্রশাসন ও সিটি করপোরেশন যৌথভাবে বহন করবে।

আজ রবিবার (১৭ নভেম্বর) সকাল ৯টার দিকে চট্টগ্রাম নগরের  পাথরঘাটা ব্রিকফিল্ড রোডের কুঞ্জমনি ভবনে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। নারী ও  শিশুসহ সাত জন নিহত হয়েছে। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ২০ জন। গুরুতর আহতদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিস্ফোরণের পর দুটি ভবনের দেয়ালের একাংশ ধসে পড়ে। এতে ওই বাড়ি এবং আশপাশের লোকজন ভেঙে পড়া দেয়ালের নিচে চাপা পড়েন। এ সময় ঘটনাস্থলেই তিনজন এবং হাসপাতালে নেওয়ার পথে আারও চারজন নিহত হন।

আহতদের মধ্যে একজনের নাম জানা গেছে। তিনি হলেন নূর ইসলাম (৩০)। তিনি পেশায় রংমিস্ত্রী। তাঁর গ্রামের বাড়ি কক্সবাজারের উখিয়ায়।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহসীন বলেন, পাঁচতলা ভবনের নিচতলায় গ্যাসের লাইনে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ওই ভবনের দুটি দেয়াল ধসে পড়ে। আহত বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক জসীম উদ্দিন বলেন, ফায়ার সার্ভিসের তিনটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ পরিচালনা করছে।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম বলেন, পাথরঘাটায় বিস্ফোরণের পর আহতাবস্থায় প্রথমে ১২ জনকে চমেক হাসপতালে নিয়ে আসা হয়। এর মধ্যে সাতজনকে মৃত ঘোষণা করেন সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক। নিহতরা চারজন পুরুষ, দুইজন নারী ও একজন শিশু।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা