kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

কারাগারে গেলেন বর ও কাজী

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কারাগারে গেলেন বর ও কাজী

কিশোরীকে বিয়ে করতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত কারাবাস জুটেছে বর আল আমিনের (২১) কপালে। তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। রক্ষা পাননি এ বিয়ের কাজী আব্দুল আজিজ (৩৮)। তাকে তিন মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে তাদের সাজা দেয়া হয়। ঘটনাটি ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সালন্দর ইউনিয়নের।

সূত্র জানায়, সদর উপজেলার সালন্দর ইউনিয়নের আরাজি কৃষ্টপুর গ্রামের মাইনুদ্দিন তার মেয়ের বিয়ের আয়োজন করেছিলেন বুধবার সন্ধ্যায়। কনের বয়স ১৬ বছর না হওয়ায় তা নিয়ে কিছুটা লুকোচুরি ছিল। বর একই ইউনিয়নের সরকারপাড়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে আল আমিন। বুধবার সন্ধ্যায় যখন বরপক্ষ কনের বাড়িতে উপস্থিত হয় ঠিক সে সময়ে হানা দেন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা। দৌড়ে পালান বিয়ের অতিথিরা। কনে নিয়ে বাবা-মাসহ স্বজনরা পালিয়ে যান ঘটনাস্থল থেকে। তখন ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুব আলম মুকুলের সহযোগিতায় আটক করা হয় কাজী আব্দুল আজিজ ও বর আল আমিনকে। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালতে দোষ স্বীকার করে নেন আব্দুল আজিজ ও আল আমিন।

সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ-আল-মামুন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। তিনি বলেন,  'কনের বয়স ১৬ বছর। দুই পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে তার সত্যতা পাওয়া যায়। তবুও বাল্যবিয়ের আয়োজন করায় দুজনকে সাজা দেয়া হয়েছে। কনে নিয়ে বাবা-মা পালিয়ে যান। কাজীর কাছ থেকে বিয়ের রেজিষ্ট্রি খাতা জব্দ করা হয়। পরে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে কাজীকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়। তার বিবাহ নিবন্ধন বাতিল করা হয়। আর বরকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।'

সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তানভিরুল ইসলাম বলেন, 'বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে এ ধরণের সাজা অনেক কার্যকর। সাজাপ্রাপ্ত দুজনকে ঠাকুরগাঁও জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা