kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

ঈশ্বরদীতে আটকে আছে ট্রেন, দুশ্চিন্তায় পরীক্ষার্থী-অভিভাবক

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ২২:২৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঈশ্বরদীতে আটকে আছে ট্রেন, দুশ্চিন্তায় পরীক্ষার্থী-অভিভাবক

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় আন্তঃনগর রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় শিকার হওয়ায় আজ বৃহস্পতিবার ঈশ্বরদীসহ আশপাশের স্টেশনে আটকে রয়েছে ৫টি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেন। আর ট্রেনযোগে ঢাকাগামী ট্রেনযাত্রীসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে যাওয়া পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকগণ রয়েছেন দুশ্চিন্তা আর উৎবেগে।

একই স্থানে দীর্ঘ সময় ধরে ট্রেনগুলো একই জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা তীব্র ভোগান্তিতে পড়েছেন কয়েক হাজার যাত্রী। আটকে থাকা ট্রেনগুলো হলো খুলনা থেকে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেন চিত্রা এক্সপ্রেস, চাটমোহর স্টেশনে দিনাজপুর থেকে ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস, ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশনে লালমনিরহাট থেকে ঢাকাগামী লালমনি এক্সপ্রেস বাইপাস স্টেশনে, রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনটি আব্দুলপুর স্টেশনে এবং বেনাপোল থেকে ঢাকাগামী বিরতিহীন আন্তঃনগর বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেন কয়েক ঘণ্টা ধরে লাইন ক্লিয়ারের জন্য অপেক্ষামান রয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চল পাকশী বিভাগীয় পরিবহণ কর্মকর্তা (ডিটিও) অফিস ও স্টেশনগুলোতে ভোগান্তিতে পড়া যাত্রীদের সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। 

ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে অপেক্ষামান বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনের ‘ঘ’ বগির যাত্রী বাসন্তী সাহা যশোর থেকে নাতনী সিথী সাহাকে নিয়ে যাচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভুক্ত কলেজে ভর্তি পরীক্ষা দিতে ঢাকায় যাচ্ছেন। কথা হয় তাদের সঙ্গে। বাসন্তী সাহা জানান, রেলওয়েতে দিন দিন চাহিদা বাড়ছে। কিন্তু প্রায় প্রতিদিনই ট্রেন দুর্ঘটনায় শিকার হচ্ছে। ট্রেনেও তো এখন আর নিরাপত্তা নেই। বিষয়টি সরকারের কঠোরভাবে দেখা উচিত।

ভর্তি পরীক্ষার্থী সিথি সাহা জানান, খুবই দুশ্চিন্তায় আছি। আগামীকাল শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজে ভর্তি পরীক্ষা রয়েছে। এই জন্য ঢাকা যাচ্ছি। কিন্তু ট্রেন দুর্ঘটনার ফলে সঠিক সময়ে ঢাকা গিয়ে পরীক্ষা দিতে পারবো কিনা সন্দেহ। 

আন্তঃনগর বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনের ‘জ’ বগির যাত্রী সবুজ হোসেন জানান, বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে প্রথম টিকিট কেটে ঢাকায় যাচ্ছিল। কিন্তু প্রথম দিনেই ভোগান্তিতে শিকার হতে হলো। 

ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনের কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার সিকেন্দার রাশেদিন পান্না জানান, উল্লাপাড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনার কারণে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনটি বিকেল পৌনে ৫টা থেকে স্টেশনে অপেক্ষমান রয়েছে। যাত্রীরা ট্রেন ও প্লাটফর্মে ঘোরাফেরা করছে। তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা জোড়দার করা হয়েছে।

পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ঈশ্বরদী থেকে উদ্ধার ট্রেন ঘটনাস্থলে বিকেলে পৌঁছে ক্ষতিগ্রস্ত বগি, ইঞ্জিন সরিয়ে রেললাইন মেরামত করা কাজ শুরু করা হয়েছে। বিভিন্ন স্টেশনে কয়েকটি ট্রেন ইতোমধ্যেই আটকে পড়েছে।

রেলওয়ে পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) আহসান উল্যাহ ভূঁইয়া জানান, উদ্ধার ও মেরামত কাজ শুরু করা হয়েছে। তিনি আশাবাদী হয়ে আরো জানান, রাত ১০টার মধ্যেই এই লাইন দিয়ে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক করা সম্ভব হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা