kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আ. লীগে সংঘর্ষ, যুবদল নেতা নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০৩:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আ. লীগে সংঘর্ষ, যুবদল নেতা নিহত

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের রাজশাহীতে টেন্ডার (দরপত্র) নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ  করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে একজন নিহত ও অন্তত চারজন আহত হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুর ২টার দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা আনোয়ার হোসেন রাজা ও আওয়ামী লীগ নেতা নগরের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নিযামুল আযীম পক্ষের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। 

রাজা রাজশাহী নগরের বোয়ালিয়া থানা আওয়ামী লীগের (পূর্ব) সাধারণ সম্পাদক। নিযামুল সাবেক প্যানেল মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য। নিহত সানোয়ার হোসেন রাশেল মহানগর যুবদলের সদস্য এবং রাজার ছোট ভাই। সংঘর্ষের ঘটনায় রাজাসহ তাঁর পক্ষের তিনজন ও নিযাম পক্ষের একজন ছুরিকাঘাতে আহত হন। পরে তাঁদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সন্ধ্যায় অপারেশন করানোর সময় রাশেল মারা যান। বিষয়টি নিশ্চিত করেন নগরের চন্দি মা থানার ওসি আব্দুল লতিব। নিযাম পক্ষের সুজন, মেহেদীসহ ১০-১২ জন এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও রেলওয়ে সূত্র জানায়, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রকের দপ্তরের একটি টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা নিযাম ও রাজার মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এরই জেরে গতকাল দুপুরে নিযামের ভাতিজা পরিচয়ধারী সুজন, তাঁর সহযোগী মেহেদী এবং ১০-১২ জন সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক বেলাল উদ্দিনের দপ্তরের সামনে রাস্তায় রাজার ওপর চড়াও হয়। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় নিযাম পক্ষের লোকজনের ছুরিকাঘাতে রাজা ও তাঁর ভাই রাশেল গুরুতর আহত হন। পরে খবর পেয়ে চন্দি মা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

চন্দ্রিমা থানার ওসি আব্দুল লতিব বলেন, ‘কী নিয়ে ঘটনা বলতে পারব না। তবে দুজন ছুরিকাঘাতে আহত হয়েছেন। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাশেল মারা গেছেন।’

সূত্রমতে, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের উন্নয়নের জন্য সরঞ্জাম শাখার আওতায় সম্প্রতি ব্যাপক কেনাকাটার উদ্যোগ নেওয়া হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা