kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

মহারাসলীলায় হাজারো মানুষের উপচেপড়া ভিড়

কমলগঞ্জে মহারাসলীলার বর্ণাঢ্য আয়োজনের সমাপ্তি

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ১৭:৪২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কমলগঞ্জে মহারাসলীলার বর্ণাঢ্য আয়োজনের সমাপ্তি

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সমাপ্ত হলো মণিপুরী সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শ্রীকৃষ্ণের মহারাসলীলা। কার্তিকের পূর্ণিমা তিথিতে কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ও আদমপুরে মণিপুরী সম্প্রদায়ের এ রাসোৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

আজ বুধবার ঊষা লগ্নে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে। পরে যার যার নিজ নিজ গন্থব্যস্থলে চলে যান। মণিপুরী সম্প্রদায়ের এ বৃহত্তম উৎসব উপলক্ষে উভয় স্থানে বসেছিল রকমারি আয়োজনে বিশাল মেলা। রাসোৎসবে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে হাজার হাজার ভক্তবৃন্দসহ দেশি-বিদেশি পর্যটকের ভিড়ে মুখরিত হয়েছিল কমলগঞ্জের মণিপুরী অঞ্চলগুলো। ভিড় সামলাতে পুলিশ সদস্যদের হিমশিম খেতে হয়।

দামোদর মাস খ্যাত কার্তিক পূর্ণিমা তিথিতে গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্মাবলম্বী মণিপুরীদের প্রধান ধর্মীয় মহোৎসব শ্রীশ্রী কৃষ্ণের মহারাসলীলা অনুসরণ। কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর জোড়া মণ্ডপ প্রাঙ্গনে মণিপুরী মহারাসলীলা সেবা সংঘের উদ্যোগে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী সম্প্রদায়ের ১৭৭ তম মহারাসলীলানুসরণ উৎসব উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা, গুণীজন সংবর্ধনা, রাসোৎসব উপলক্ষে প্রকাশিত স্মারক সংকলনের মোড়ক উন্মোচন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মণিপুরী মহারাসলীলা সেবা সংঘের সভাপতি প্রকৌশলী যোগেশ্বর সিংহের ও সাধারণ সম্পাদক শ্যাম সিংহের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বিপিএম (বার), অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মল্লিকা দে, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশেকুল হক, জুড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বণিক, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল সার্কেল) আশরাফুজ্জামান, কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, সিলেট এর নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার দে, রাজশাহী আর্ট কলেজের প্রভাষক চিত্রশিল্পী নারগিস পারভীন সোমা, মণিপুরী সমাজকল্যাণ সমিতির সভাপতি, মুক্তিযোদ্ধা আনন্দ মোহন সিংহ।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, মণিপুরী ললিতকলা একাডেমির গবেষণা কর্মকর্তা প্রভাস চন্দ্র সিংহ, রাসপূর্ণিমা-২০১৯ সংকলনের সম্পাদক নির্মল এস পলাশ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে মণিপুরী সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিসরুপ হরিমোহন সিংহ, ডা. স্বপন  কুমার সিংহ, প্রভাক কুমার সিংহ, মৃদঙ্গ বাদক রাজেন্দ্র কুমার সিংহ ও ধনেশ সিংহকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। রাত ১২টা থেকে শনিবার ভোর পর্যন্ত চলে শ্রীশ্রী কৃষ্ণের মহারাসলীলানুসরণ।

অপরদিকে রাসোৎসব ২০১৯ উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে আদমপুর মণিপুরী কালচারাল কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে মীতৈ মণিপুরী সম্প্রদায়ের ৩৪ তম রাস উৎসব ও আদমপুর তেতইগাঁও মধুমঙ্গল শর্ম্মা মণ্ডপ প্রাঙ্গনে মণিপুরী সাংস্কৃতিক পরিষদের আয়োজনে (মীতৈ মণিপুরী সম্প্রদায়ের) ৪র্থ বারের মতো রাস উৎসব নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হয়। এখানে রাত সাড়ে রাত ১১টা থেকে বুধবার ভোর পর্যন্ত চলে শ্রীশ্রী কৃষ্ণের মহারাসলীলা উৎসব। ভোরের সূর্যোদয়ের পর অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে।

১৯২৬ সালের সিলেটের মাছিমপুরে মনিপুরী মেয়েদের পরিবেষ্টিত রাস নৃত্য উপভোগ করে মুগ্ধ হয়েছিলেন বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। পরে কবিগুরু কমলগঞ্জের নৃত্য শিক্ষক নীলেশ্বর মুখার্জীকে শান্তি নিকেতনে নিয়ে প্রবর্তন করেছিলেন মণিপুরী নৃত্য শিক্ষা। কমলগঞ্জে প্রায় এক মাস আগ থেকেই চলছিল রাসোৎসবের প্রস্তুতি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা