kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

মেঘনার চরে আটকে পড়ল যাত্রীবাহী লঞ্চ

বরিশাল অফিস   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ১১:১৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেঘনার চরে আটকে পড়ল যাত্রীবাহী লঞ্চ

আটকে পড়া লঞ্চ এমভি শাহরুখ-২।

প্রায় এক হাজার যাত্রী নিয়ে মেঘনার চরে আটকা পড়েছে বরগুনা থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া একটি যাত্রীবাহী লঞ্চ।  'এমভি শাহরুখ-২' নামের  লঞ্চটি গতকাল মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) বিকেল ৪টার দিকে বরগুনা নৌবন্দর থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। দিবাগত রাত ৩টার দিকে নৌযানটি বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার কালীগঞ্জসংলগ্ন মেঘনা নদীর চরে আটকে যায়।

আজ বুধবার (১৩ নভেম্বর) সকাল ১০টা পর্যন্ত লঞ্চটি চরে আটকা  ছিল। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ে যাত্রীরা।

 
আটকে পড়া লঞ্চ থেকে নামছেন যাত্রীরা। 

মির্জা এস আই খালেদ নামের এক যাত্রী অভিযোগ করেন, লঞ্চটি মেঘনার কালীগঞ্জ চ্যানেল অতিক্রমের সময় অদক্ষ চালকের সামনের অংশ ডাঙায় তুলে দেন। আরেক যাত্রী মনির চৌধুরী বলেন, প্রায় সাত ঘণ্টা ধরে আটকা পড়ে থাকলেও তাঁরা লঞ্চের কর্মচারীদের কোনও সাড়াশব্দ পাচ্ছেন না। এমনকি তাঁরা কোথায় আছেন- সে হদিসও পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে যাত্রীরা সবাই গভীর উৎকণ্ঠার মধ্যে আছেন। তিনি বলেন, এরইমধ্যে যাত্রীদের দুর্ভোগের সুযোগ নিয়ে লঞ্চের ক্যানটিনে খাবারের দাম দ্বিগুণ-তিনগুণ করে নেওয়া হচ্ছে। 

 
চরে এভাবে পড়ে আছে লঞ্চটি। 

কয়েক বছর ধরেই শীত মৌসুমে নিয়মিত নাব্যতা সংকট দেখা দিচ্ছে মেঘনা নদীতে। বিশেষ করে বরিশালের হিজলা উপজেলা ও চাঁদপুরের মধ্যবর্তী মেঘনার বিশাল অংশের নাব্য সংকট 'মিয়ারচর'  চ্যানেলের অস্তিত্বকে হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছে। নাব্যতা সংকট এত প্রকট হয়ে ওঠায় মিয়ারচর চ্যানেলকে নৌযান চলাচলের অনুপযোগী ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডাব্লিউটিএ)।

এ চ্যানেলকে অনুপযোগী ঘোষণার পর নৌযানগুলো বিকল্প পথ হিসেবে মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার কালীগঞ্জ চ্যানেল ব্যবহার করছে। এ জন্য তাদের তিন দশমিক চার নটিক্যাল মাইল পথ বেশি পাড়ি দিতে হচ্ছে। অতিরিক্ত জ্বালানি ব্যয় হচ্ছে অন্তত দেড় শ লিটার। কিন্তু বিকল্প এই চ্যানেলও এখন নাব্যতা  সংকটে পড়েছে। ফলে প্রায় দিনেই যাত্রীবাহী নৌযান আটকা পড়ে। এতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যাত্রীরা দুর্ভোগ পোহান। আসছে শুষ্ক মৌসুমে এই সংকট আরও ঘনীভূত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা