kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

গোপালগঞ্জে সড়ক দেবে ঝুঁকিতে খাদ্যগুদামের পাঁচটি ভবন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

১২ নভেম্বর, ২০১৯ ২০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গোপালগঞ্জে সড়ক দেবে ঝুঁকিতে খাদ্যগুদামের পাঁচটি ভবন

গোপালগঞ্জ জেলা সদরের পাচুড়িয়া-মোহাম্মাদপাড়া সড়কের পাচুড়িয়া খাদ্যগুদামের সামনের অংশ হঠাৎ দেবে গেছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে ওই সড়কে চলাচলকারী সাধারণ লোকজন। ঝুঁকিতে রয়েছে পাচুড়িয়া খাদ্যগুদামের পাঁচটি ভবন। ওই স্থানের পাশেই পৌর সুপার মার্কেট নির্মাণের জন্য পাইলিং করায় নীচের স্তরের বালু সরে যাওয়ায় রাস্তা দেবে গেছে বলেও দাবি স্থানীয়দের।

গোপালগঞ্জ খাদ্যগুদাম কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট মহলে চিঠি দিলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এ নিয়ে গুদাম কর্তৃপক্ষ ও এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এলাকাবাসী দ্রুত পাচুড়িয়া-মোহাম্মাদপাড়া সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত ওই সড়ক অংশটি সংস্কার করে খাদ্য গুদামের বাউন্ডারির বাইরের ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার সরজমিনে দেখা যায়, পাচুড়িয়া-মোহাম্মাদপাড়া সড়কের পাচুড়িয়া খাদ্যগুদামের সামনের অংশ দু’তিন দিন আগে হঠাৎ করেই দেবে গেছে। খাদ্য গুদামের সামনের ১০ ফুট দুরের মাটি ও বাউন্ডারি ওয়াল রাস্তা থেকে দুই ফুট দেবে গেছে। গোডাউনে মাল পরিবহনের জন্য কোনো ট্রাক ঢুকতে পারছে না। ওই সড়কে চলাচলকারী স্থানীয় লোকজনও নিয়মিত ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। চরম ঝুঁকিতে রয়েছে খাদ্যগুদামের পাঁচটি ভবন। দ্রুত সড়কটি সংস্কার করা না হলে খাদ্য গুদামের হাজার হাজার টন ধান, চাল ও গমসহ ভবনগুলি হেলেপড়ে বড় ধরনের ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। 

ওই এলাকার আকবর আলী খান, লুৎফার রহমান, টুটুল শেখ, জিহাদ শেখসহ বেশ কয়েক জনের সাথে কথা হলে তারা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ১৯৭৮ সালে গোডাউনের সামনের রাস্তা নির্মাণ করা হয় এবং রাস্তার পাশে খালপাড়ে মাটি দেওয়া হয়। কয়েকদিন আগে হঠাৎ করে এই রাস্তা দুই ফুট দেবে যায়। পাশেই পৌর সুপার মার্কেট নির্মানের কাজ চলছে, সেখানে পাইলিং করার কারণেও রাস্তা দেবে গিয়ে থাকতে পারে। এলাকাবাসীর যাতায়াতে সমস্যা হচ্ছে। খাদ্যগুদামের ভবনগুলিও ঝুঁকিতে রয়েছে। তারা দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত ওই সড়কটি মেরামতের দাবি জানিয়েছেন।

খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমীনুল ইসলাম বরকত জানান, কয়েকদিন আগে হঠাৎ করে খাদ্য গুদামের সামনের এই রাস্তা বাইন্ডারি ওয়ালসহ প্রায় দুই ফুট দেবে গেছে। খাদ্য গুদাম থেকে মালামাল পরিবহনের কোনো ট্রাক ভিতরে ঢুকতে পারছে না। এই কারণে আমাদের খাদ্যগুদামের ভবনগুলিও ঝুঁকিতে রয়েছে। দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত ওই সড়কটি মেরামত করা প্রয়োজন।

গোপালগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী অবিনাষ সরকার মুঠোফোনে জানিয়েছেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। আপনার কাছ থেকেই শুনলাম। তবে পৌর মার্কেটের পাইলিং এর কারণে এই ধরনের ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা নেই। আগামীকাল বুধবার যেয়ে কি ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায় তা করা হবে।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেছেন, পাচুড়িয়া খাদ্যগুদামের সামনের রাস্তাটির পাচুড়িয়া খালপাড়ের বেশ কিছু অংশ দেবে গেছে। সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দিয়ে বিষয়টি আমি খোঁজ নিয়েছি। ইতিমধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সড়ক বিভাগের সাথে কথা বলেছি দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। তারা পৌরসভার সাথে সমন্বয় করে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে সমস্যা সমাধান করবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা