kalerkantho

শনিবার । ২৩ নভেম্বর ২০১৯। ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জামাতাকে বাঁচাতে গিয়ে শাশুড়ির মৃত্যু

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

৯ নভেম্বর, ২০১৯ ১২:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জামাতাকে বাঁচাতে গিয়ে শাশুড়ির মৃত্যু

মেয়ে জামাইয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসে লাশ হয়ে ফিরলেন শাশুড়ি খাদিজা বেগম (৬০)। জামাতা নাসির উদ্দিনকে (৩৫) বাঁচাতে গিয়ে তিনি মারা যায়। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাত ৮টার দিকে আমতলী পৌর শহরের বাসুগী এলাকায়।

এলাকাবাসী জানায়, পৌর শহরের বাসুগী এলাকার মো. নাসির উদ্দিন সরদার ঘটনার সময় বসতঘরে ঢুকতে গেলে তার হাতে থাকা টর্চ লাইটটি মাটিতে পড়ে যায়। তিনি সেটা তুলে দাঁড়ালে বসতঘরের বিদ্যুৎ লাইনের তারের সাথে তার মাথা স্পর্শ করে। এতে নাসির বিদ্যুতায়িত হয়ে পড়ে চিৎকার দিতে থাকে। এ সময় মেয়ে জামাইয়ের বাড়িতে বেড়াতে আসা শাশুড়ি খাদিজা বেগম জামাতাকে বাঁচাতে এগিয়ে এসে তিনিও বিদ্যুতায়িত হয়ে পড়েন। তখন স্থানীয়রা বিদ্যুৎ অফিসের সাবস্টেশনে ফোন দিয়ে পৌর শহরের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করেন। 

স্বজন ও স্থাণীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় শাশুড়ি ও জামাতাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। কর্তব্যরত চিকিৎসক শাশুড়ি খাদিজা বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত জামাতাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। 

নিহত খাদিজা বেগম পটুয়াখালী জেলার দুমকী উপজেলার আ. বারেকের স্ত্রী। তিনি ১০/১৫ দিন পূর্বে মেয়ে-জামাই নাসির উদ্দিন সরদারের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. শাকিলা আক্তার বলেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার পূর্বেই খাদিজা বেগম মারা যান। আহত জামাতা নাসির সরদারের স্ত্রী সুমী আক্তার জানান, আমার স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে আমার মা বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেছেন।

আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাসার বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশের ময়নাতদন্ত না করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা