kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চবির ‘ডি’ ইউনিটে পাসের হার ৩৪ শতাংশ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০৪:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চবির ‘ডি’ ইউনিটে পাসের হার ৩৪ শতাংশ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) স্থগিতকৃত ‘ডি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে পাস করেছেন ৩৪ শতাংশ শিক্ষার্থী। গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে এ ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এদিকে ২০১৮ সালে আবেদনের যোগ্য হয়েও ২০১৯ সালে উচ্চ মাধ্যমিকে মানোন্নয়ন পরীক্ষা দিয়ে চবি ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের ‘ডি’ ইউনিট থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এর আগে পরীক্ষায় কারিগরি ত্রুটির কারণে এই ইউনিটের একাংশের পুনঃপরীক্ষা গত বুধবার অনুষ্ঠিত হয়।

জানা গেছে, চবির ‘ডি’ ইউনিটের ফলাফলে ২০১৮ সালে আবেদনের যোগ্যরা এবার ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হিসেবে বাদ পড়েছেন। তাঁদের ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে অ্যাবসেন্ট অথবা ক্যানসেল দেখাচ্ছে। এ ছাড়া অন্যান্য ইউনিটে প্রকাশিত ফলাফলে তাঁদের (২০১৮ সালে ভর্তি পরীক্ষার যোগ্য) ভর্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে প্রশাসন হিমশিম খাচ্ছে। এর অন্যতম কারণ অস্পষ্ট ভর্তি বিজ্ঞপ্তি, আইটি সেলের সফটওয়্যার ডেভেলভমেন্টের অভাবসহ সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের অবহেলা।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ‘ডি’ ইউনিটে মানোন্নয়ন দিয়ে প্রায় তিন হাজার ভর্তীচ্ছু পরীক্ষা দিয়েছেন। ভর্তি কমিটির নির্দেশনায় ‘ডি’ ইউনিট থেকে গত বছরের যোগ্যদের (এ বছর অযোগ্য) বাদ দেওয়া হয়েছে। তবে যাঁরা গত বছর ভর্তি পরীক্ষার যোগ্য ছিলেন না—এ বছর মান্নোনয়নের মাধ্যমে যোগ্যতা অর্জন করে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন তাঁদের ফলাফল স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে ‘ডি’ ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর ও শিক্ষা অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল ফারুকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভর্তি কমিটির নির্দেশনা ও নীতিমালা অনুযায়ী ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। সে হিসেবে অযোগ্য (২০১৮ সালে যোগ্য থাকা সত্ত্বেও ২০১৯ এ উচ্চ মাধ্যমিক মান্নোনয়নের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী) কিছু পরীক্ষার্থী বাদ পড়েছেন। 

এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সদস্যসচিব ও একাডেমিক শাখার ডেপুটি রেজিস্ট্রার এস এম আকবর হোছাইনের মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা