kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গফরগাঁও মহিলা ডিগ্রি কলেজকে স্নাতক পর্যায়ে এমপিওভুক্তির দাবি

নন এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের মানবেতর জীবনযাপন

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

৮ নভেম্বর, ২০১৯ ১২:৪৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গফরগাঁও মহিলা ডিগ্রি কলেজকে স্নাতক পর্যায়ে এমপিওভুক্তির দাবি

ময়মনসিংহের গফরগাঁও মহিলা ডিগ্রী কলেজে পৌরনীতি বিষয়ের প্রভাষক পদে (নন-এমপিও) প্রায় ১০ বছর চাকরি করছেন কামাল হোসেন। তার চাকরিটি এমপিওভুক্ত না থাকায় কলেজ কর্তৃপক্ষের দেওয়া যৎসামান্য সম্মানীতে কষ্টে-সৃষ্টে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। প্রতিষ্ঠানটি উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হলেও স্নাতক পর্যায়ে কামাল হোসেনের মতো ১২ জন শিক্ষক ও ৩ জন চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নন-এমপিও রয়েছেন। তাদের চাকরি এমপিওভুক্ত না থাকায় আর্থিক দৈন্য-দশার মধ্যে আছেন। তারা পেটের দায়ে কেউ টিউশনি, কেউ অন্য কিছু করে কোনভাবে বেঁচে আছেন। তাই স্নাতক পর্যন্ত কলেজটি এমপিওভুক্তির দাবি উঠেছে।  

কলেজ সূত্রে জানা যায়, সাবেক এমপি আবুল হাশেম (১৯৭০-'৭৩) ১৯৭২ সালের ১৫ জুলাই ৩৭২.৫ শতাংশ জমির ওপর গফরগাঁও মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। ভিত্তিপ্রস্তার স্থাপন করেন তৎকালীন শিল্পমন্ত্রী ও মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম। কলেজটি উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে প্রথম স্বীকৃতি পায় ১৯৮৭ সালে। ২০০৮-'০৯ শিক্ষাবর্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কলেজটিতে ডিগ্রি কোর্স চালুর অনুমোদন দিলে শিক্ষক সংকট দেখা দেয়। তারই প্রেক্ষেতে কলেজ কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সময় পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সৃষ্ট পদে ১২ জন প্রভাষক নিয়োগ দেন। বর্তমানে কলেজটিতে ১৭টি বিষয়ে দুই সহস্রাধিক (২১৫৬ জন) শিক্ষার্থীর বিপরীতে ৫২ জন শিক্ষক-কর্মচারী রয়েছেন। এর মধ্যে ১২ জন শিক্ষক ও ৩ জন চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নন-এমপিওভুক্ত অবস্থায় রয়েছেন।

গফরগাঁও মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল খালেক বলেন, আমাদের সাধ্য সীমিত। এমপিও-বিহীন শিক্ষক-কর্মচারীদের মাস শেষে অতি সামান্য সম্মানী দেওয়া সম্ভব হয়। এ টাকায় চলা সম্ভব নয়। তাই তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা