kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এসপির সংবাদ সম্মেলন

আধিপত্য নিয়েই লক্ষ্মীপুরে ইউপি সদস্য মিরন হত্যা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ১৭:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আধিপত্য নিয়েই লক্ষ্মীপুরে ইউপি সদস্য মিরন হত্যা

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়ন (ইউপি) সদস্য (মেম্বার) ও ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক খোরশেদ আলম মিরন হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করা হয়েছে। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করেই মিরনকে হত্যা করা হয়েছে বলে আসামি জামাল হোসেন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ইউপি সদস্য মিরন মেম্বার হত্যাকাণ্ডের অন্যতম আসামি মো. জসিমকে সোমবার (২১ অক্টোবর) বিকেলে সদর উপজেলার বটতলী এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার তথ্যের ভিত্তিতে উপজেলার চরচামিতা মিজি বাড়ির কাচারী ঘরের মাটির নিচে লুকিয়ে রাখা বস্তা ভর্তি অস্ত্র ও গুলিসহ অন্যান্য সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে ৪টি অস্ত্র, ২৬ রাউন্ড কার্তুজ, ২টি স্ট্রেসার লাইট রয়েছে। এর আগে গত ১১ অক্টোবর হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত নম্বরবিহীন সিএনজি চালিত অটোরিকশা ও চালক জামালকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

গ্রেপ্তার জামাল উপজেলার হাজিরপাড়া ইউনিয়নের নাছিরপুর গ্রামের নুর নবীর ছেলে এবং জসিম একই ইউনিয়নের চরচামিতা গ্রামের মুনছুর আহমদের ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গত ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে ইউপি সদস্য মিরনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়। আসামি জামাল তার দোষ স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক এ জবানবন্দি দেয়। আসামি জসিমের তথ্য অনুযায়ী উদ্ধার হওয়া অস্ত্র মিরন হত্যা ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, মিরন হত্যা মামলার অন্যতম আসামি ইলিয়াছ কোবরা গত ১৪ অক্টোবরে দুই সন্ত্রাসী বাহিনীর গোলাগুলিতে নিহত হয়। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি বন্দুক, ২ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা