kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চট্টগ্রাম বন্দর

মেয়াদোত্তীর্ণ ১৩ টন ফুচকা তৈরির কাঁচামাল আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ১৪:৩৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেয়াদোত্তীর্ণ ১৩ টন ফুচকা তৈরির কাঁচামাল আটক

১৩ টন মেয়াদোত্তীর্ণ ফুচকা তৈরির কাঁচামাল আমদানির একটি চালান চট্টগ্রাম বন্দরেই আটক করলো চট্টগ্রাম কাস্টমসের গোয়েন্দা দল (এআইআর)। কন্টেইনার খুলে কায়িক পরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়ার পর গতকাল মঙ্গলবার চালানটি আটক করা হয়। চালানটির ঘোষিতমূল্য ৪ লাখ টাকা। আর এতে রাজস্ব ছিল ২ লাখ ৬১ হাজার টাকা।

ধারণা করা হচ্ছে, মেয়াদোত্তীর্ণ এই পণ্য জালিয়াতি করে নতুন উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ বসিয়ে বাজারে বিক্রি করা হতো। তার আগেই আটক করলো কাস্টমস। 

বিষয়ে জানতে চাইলে কাস্টমস গোয়েন্দা এআইআর সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা রাসেল মাহমুদ জুয়েল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘চালানটির বিল অব এন্ট্রি খালাসের জন্য কাস্টমসে জমা দিলে আমরা পণ্যের কায়িক পরীক্ষা করতে গেলে বিষয়টি ধরা পড়ে। ১৩ টন ফুচকার সবগুলোই ২০১৯ সালের ২২ সেপ্টেম্বর মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে। সবগুলো চালানই খাবার অনুপযোগী বলে বাজেয়াপ্ত করা হবে।

জানা গেছে, যশোরের আমদানিকারক মেসার্স হাসান ব্রাদার্স একটি কন্টেইনারে ১৩ টন ফুচকা আমদানির জন্য ইসলামী ব্যাংক থেকে একটি ঋণপত্র খোলেন। চালানটি জাহাজীকরণ হয় মালয়েশিয়া পোর্ট কেলাঙ বন্দরে। কিন্তু চালানটি তৈরি হয় ভারতে। এরপর চালানটি ২১ মার্চ চট্টগ্রাম বন্দরে নামানো হয়। দীর্ঘদিন ফেলে রাখার পর গত ৩ অক্টোবর চালানটির বিল অব এন্ট্রি চট্টগ্রাম কাস্টমসে জমা দেয় সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের কুমিল্লা শিপিং। এজন্য চালানটির বিপরিতে ২ লাখ ৬১ হাজার টাকা রাজস্বও পরিশোধ করে আমদানিকারক। পরে কন্টেইনার খুলে পরীক্ষা দেখা যায় সবগুলো প্যাকেটই মেয়াদোত্তীর্ণ।

রাসেল মাহমুদ জুয়েল বলেন, ভারতের তৈরি ফুচকা তৈরির কাঁচামাল মালয়েশিয়া থেকে তো আসার কথা নয়। এটা নিশ্চিত যে আমরা ধরতে না পারলে এসব পণ্যে নতুন উৎপাদন-উত্তীর্ণ তারিখ বসিয়ে ভোক্তাদের খাওয়ানো হতো। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা