kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মেয়ের উত্যক্তকারীকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ডামুড্যা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি   

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ০১:৩৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেয়ের উত্যক্তকারীকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

নিহত মামুন বেপারী। ছবি: কালের কণ্ঠ

শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যায় এক কিশোরীকে উত্যক্ত করায় মো. মামুন বেপারী (২২) নামের এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ডামুড্যা উপজেলার পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বড়নওগাঁ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মো. মামুন বেপারী ওই গ্রামের জলিল বেপারীর ছেলে।

এ ঘটনায় সাহেব আলী মাল (৩৮) ও তার ভাই বিল্লাল মাল (১৯)কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বড়নওগাঁ গ্রামের সাহেব আলী মালের মেয়ে সম্পা আক্তার (১৪) কে দীর্ঘদিন যাবৎ রাস্তা ঘাটে কুপ্রস্তাব ও উত্যক্ত করত একই গ্রামের জলিল বেপারীর ছেলে মামুন বেপারী। সোমবার বিকেলে সম্পা বাড়ির ঘাটায় গেলে মামুন আবার কুপ্রস্তাব এবং জড়িয়ে ধরার চেষ্টা করে। এ ঘটনা সম্পা তার বাবা সাহেব আলীর কাছে বলে। সাহেব আলি মামুনের বাড়িতে গিয়ে এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে দুজনের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়।

বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে সাহেব আলী মামুন বেপারীকে পেটে ছুরিকাঘাত করে আহত করে। মামুন আহত অবস্থায় ঘর থেকে দা এনে সাহেব আলী মাল ও তার ভাই বিল্লাল মালকে কুপিয়ে আহত করে। পরে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে মামুনকে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়, কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় সাহেব আলী ও তার ভাই বিল্লালকে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. ফাতেমা মাহজাবিন জানান, শরীরে ক্ষত অবস্থায় রোগী মামুনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্বজনরা। পরীক্ষা করে দেখি হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

ডামুড্যা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য নিহত মামুনের মরদেহ শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য দুইজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা