kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বিয়েপাগল মা, সৎ বাবাকে তুলেই নিয়ে গেল ছেলে

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:০৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিয়েপাগল মা, সৎ বাবাকে তুলেই নিয়ে গেল ছেলে

কুড়িগ্রামের উলিপুরে ৫ সন্তানের জনক এক প্রধান শিক্ষকের সাথে ৫ম বারের মতো বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন একই স্কুলের এক সহকারী শিক্ষিকা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার তবকপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ সাদুল্ল্যা ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

মায়ের এমন কাণ্ডে ক্ষিপ্ত হয়ে কলেজ পড়ুয়া ছেলে তার সহপাঠিদের নিয়ে প্রধান শিক্ষককে স্কুল থেকে তুলে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার তবকপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ সাদুল্ল্যা ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাইনুল ইসলাম সম্প্রতি বদলি হয়ে এসে একই বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকার সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। বিদ্যালয় চলাকালীন সময় তাদের কর্মকাণ্ড দৃষ্টিগোচর হলে স্থানীয় লোকজন ও অভিভাবক মহল কিছুদিন আগে শালিস বৈঠকের মাধ্যমে তাদের ভৎসনা করেন। বিদ্যালয়ের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে বৈঠকে তাদের উভয়কে প্রত্যাহারের দাবি ওঠে।

কিন্তু প্রত্যাহারের আগেই গতকাল রবিবার রাতে গোপনে ঐ শিক্ষিকা ৫ম বারের মতো বিয়ের পিঁড়িতে বসে ওই প্রধান শিক্ষকের সাথে। আজ সোমবার সকালে বিয়ের বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষকের কর্মকাণ্ডে বিক্ষুব্ধ হয়ে বিদ্যালয়ে তালা লাগানোর চেষ্টা করে। এ সময় ওই শিক্ষিকার কলেজ পড়ুয়া পুত্র মায়ের অনৈতিক কার্যকলাপে ক্ষিপ্ত হয়ে সহপাঠীদের নিয়ে ওই প্রধান শিক্ষককে তুলে নিয়ে যায়। এদিকে ওই ঘটনার প্রতিকার চেয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সোলায়মান মিয়া বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন।

উল্লেখ্য, ওই সহকারী শিক্ষিকার প্রথম বিয়ে ভেঙে গেলে দ্বিতীয় বিয়ে করেন উপজেলার তবকপুর ইউনিয়নে জনৈক ব্যক্তিকে। তার সাথে নানা কারণে অমিল হলে তিন দফা তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। কিন্তু তিন বারেই তারা পূনঃবিয়ে করেন। সর্বশেষ তিনি গতকাল রবিবার রাতে একই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের প্রেমে মজে ৫ম বারের মতো বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক শাহ্ বলেন, বিষয়টি শুনেছি। তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা