kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, আটক ৩

মহাদেবপুর-বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, আটক ৩

নওগাঁর মহাদেবপুরে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় মামলা রুজু করে রবিবার সকালে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো উপজেলার ভীমপুর ইউনিয়নের চকরাজা গ্রামের আফাজ উদ্দীনের ছেলে সিরাজুল ইসলাম (৩৬), রহিমের ছেলে মিঠু (৩৮) ও মৃত কসতুল এর ছেলে বাবু (৪০)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী গৃহবধূ গত বৃহস্পতিবার বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়ি যাওয়ার জন্য ভ্যানযোগে সন্ধ্যায় উপজেলার সরস্বতীপুর বাজার এলাকার কদমতলী মোড়ে নামেন। সেখান থেকে হেঁটে বাড়ি যাওয়ার পথে তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে বাজারের পাশে পরিত্যক্ত চাল কলের চাতালে চারজন বখাটে যুবক পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ সময় পাশের রাস্তা দিয়ে পথচারীরা যাওয়ার সময় শব্দ শুনে ভেতরে প্রবেশ করলে তিন বখাটে পালিয়ে গেলেও সিরাজুলকে আটক করে। পরে ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে বাড়িতে আনা হয় এবং সিরাজুলকে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়।

পরদিন শুক্রবার ভুক্তভোগীর স্বামী বিচারের দাবিতে গ্রামের মাতব্বরদের বিষয়টি জানাতে গেলে সুযোগ বুঝে সিরাজুলের লোকজন তালা ভেঙে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এ ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছিল।

বিষয়টি থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ালে শনিবার সন্ধ্যায় নওহাটা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ফরিদ ও তার সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনকে আটক করে মহাদেবপুর থানায় নিয়ে যায়। এদিন রাতে ভুক্তভোগী গৃহবধূ বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ পাঠিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছে। অপর আসামি ইউনুছ পলাতক রয়েছে। তাকে আটকের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

তিনি আরো বলেন, ভুক্তভোগী গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা