kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা, স্বামীর দাবি 'ডাকাতি'

সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৩:৩২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা, স্বামীর দাবি 'ডাকাতি'

নওগাঁর সাপাহারে নিজ স্ত্রীকে শ্বাষরোধে হত্যার পর বিষয়টি 'ডাকাতির ঘটনা' বলে চালানোর চেষ্টা করেছে এক চতুর স্বামী। গত শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার বিদ্যানন্দী বাহাপুর গ্রামে নৃশংস ঘটনাটি ঘটেছে। 

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ওই দিন রাত ২টার দিকে উক্ত গ্রামের মোজাফ্ফর রহমানের ছেলে নজরুল ইসলাম (৩২) তার বাড়ি থেকে বেরিয়ে গ্রামের অন্যলোকের দরজায় আঘাত করলে গ্রামের কয়েকজন লোক বেরিয়ে আসে এবং তাকে তার মুখে স্কচটেপ আঁটা ও হাত দুটি পেছনের দিকে গামছা দিয়ে বাঁধা অবস্থায় দেখতে পায়। এ সময় তারা তার মুখের টেপ ও বাঁধন খুললে সে তাদেরকে বলে যে, আমার বাড়িতে ডাকাতদল প্রবেশ করেছে, তারা আমার ছেলেকে কূপের মধ্যে ফেলে দিতে চায়, আপনারা আমার ছেলেকে বাঁচান বলে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। 

গ্রামের লোকজন তার বাসায় ছুটে এসে দেখতে পায় যে, বিছানায় তার স্ত্রী রুমীকে (২৫) অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছে। লোকজন তৎক্ষণাৎ তাকে ও তার স্বামী নজরুল ইসলামকে সেখান থেকে উদ্ধার করে রাত আড়াইটার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক রুমীকে দেখে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত রুমীর গলায় শ্বাস রোধ করে হত্যার স্পষ্ট চিহ্ন রয়েছে। 

মৃত গৃহবধু রুমীর স্বামী নজরুল ইসলামের সাথে হাসপাতালে কথা হলে তিনি জানান, রাত দেড়টার দিকে সে বাড়ির বাথরুম থেকে বেরোনোর সময় তাকে অপরিচিত তিনজন লোক জাপটে ধরে এবং তাকে তার ঘরের মধ্যে নিয়ে গিয়ে বাইরের দরজার চাবি আদায় করে। বাড়ির দরজায় তালা ছিল তারা কি করে বাসায় প্রবেশ করল এ প্রশ্নের জবাবে সে কিছুই বলতে পারে না। এর পর ডাকাতরা চাবি দিয়ে বাড়ির সদর জরজা খুললে আরো ছয়জন লোক বাইরে থেকে বাসায় প্রবেশ করে এবং তাকে তার শয়নঘরের মধ্যে নিয়ে গিয়ে গামছা দিয়ে দুহাত বেঁধে ফেলে ও মুখে স্কচটেপ এঁটে দেয়। এর পর আবারো তাকে ঘর থেকে বের করে নিয়ে বাড়ির আঙিনায় যায়। এ সময় সে ডাকাতদলের হাত থেকে ফসকে সদর দরজা দিয়ে বেরিয়ে প্রতিবেশীদের ডাক দেয়। এর মধ্যে ঘরে ডাকাতদল কি করল এবং কি সম্পদ লুট করল তা জানা নেই বলে জানান এবং এ পর্যন্ত তার স্ত্রী ও সন্তান ঘুমেই ছিল বলে তিনি জানান।

নিহত গৃহবধূর পিতা রমজান আলী দাবি করেন, তাদের মেয়েকে নজরুল হত্যা করে ডাকাতির নাটক সাজিয়েছে। তাদের বাড়ি ধামইরহাট উপজেলার ফতেপুর গ্রামে। ঘটনার পর রাত্রি সাড়ে ৩টা হতে সাপাহার থানার ওসি আব্দুল হাই পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে রয়েছে। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোনো মামলা দায়ের না হলেও হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা