kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

'নদী তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম চলমান থাকবে'

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ০১:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'নদী তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম চলমান থাকবে'

ছবি: কালের কণ্ঠ

বুড়িগঙ্গা নদীর দুই তীর ঘিরে যে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে তার অপসারণ কার্যক্রম চলমান থাকবে। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পরে ইতিমধ্যে নদী সীমানা পিলার স্থাপন, ওয়াক ওয়ে নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া নদীকে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে প্রশস্ত করা হবে। এমনটাই বলেন, নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুস সামাদ।

গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর কামরাঙ্গীর চরের খোলামোড়া এলাকায় নদী তীরে সীমানা পিলার স্থাপনের নির্মাণ কাজ পরিদর্শনকালে তিনি এসব কথা বলেন। নৌ সচিব আরো বলেন, নদীর দুপাশে বনায়ন করা হবে। বায়ু দূষণ রোধে ও পরিবেশ সুন্দর করার জন্য নদীর দুই পাশের তীরে বিভিন্ন ফুলের গাছ লাগানো হবে।

অবৈধ দখলদাররা যেন পুনরায় আবার নদীর তীরবর্তী পরিবেশ নষ্ট করতে না পারে সে বিষয়ে বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখা হবে। নদীর দূষণ রোধে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করা হবে। এছাড়াও ঢাকা শহরের বিভন্ন খাল যেগুলো দখল হয়ে গেছে অথবা নষ্ট হয়ে গেছে ‌ওই খালগুলো পুনরায় উদ্ধার করা হবে।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পরিবেশবিদ সৈয়দ আবুল মকসুদ, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এম এম তারিকুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএর সদস্য (অর্থ) ও প্রকল্প পরিচালক মো. নরুল আলম, বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফউদ্দিন।

আবুল মকসুদ বলেন, নদী তীর দখল ও দূষণ রোধে সরকারের পাশাপাশি নাগরিক সমাজ কাজ করছে। জনগণের সহযোগিতা ও সরকারের উদ্যোগ ছাড়া দখল ও দূষণ রোধ সম্ভব নয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা