kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

নোবিপ্রবি ক্যাফেটেরিয়ায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, নিম্নমানের খাবার

শাহরিয়ার নাসের, নোবিপ্রবি   

১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০৯:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নোবিপ্রবি ক্যাফেটেরিয়ায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, নিম্নমানের খাবার

প্রতিষ্ঠার এক যুগেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) নেই মানসম্মত ক্যাফেটেরিয়া।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর একের পর এক সমস্যার মুখোমুখি হন শিক্ষার্থীরা। তার মধ্যে ক্যাফেটেরিয়া সমস্যা অন্যতম। বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত প্রায় ছয় হাজার ৫০০ শিক্ষার্থীর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়টিতে রয়েছে আধাপাকা ছোট একটি ক্যাফেটেরিয়া, যেটি নানা সমস্যায় জর্জরিত।

ভর্তুকিবিহীন এই ক্যাফেটেরিয়ায় নিম্নমানের খাবার উচ্চমূল্য বিক্রি, ভেতর এবং বাহিরের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, বসার জায়গা সংকট, নিরাপদ পানির অভাব, পর্যাপ্ত লাইট ফ্যানের ব্যবস্থা না থাকাসহ আরো বেশ কয়েকটি সমস্যা শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ক্যাফিটেরিয়ার চারপাশে আগাছায় ভরে গেছে। কয়েকটি জানালা ভাঙা, ভেতরে নেই বসার জন্য মানসম্মত পরিবেশ, বিকল হয়ে পড়ে আছে কয়েকটি ফ্যান এবং উচ্চমূল্যে বিক্রি হচ্ছে নিম্নমানের খাবার। নেই কোনো খাবারের মূল্য তালিকা। ক্যাফেটেরিয়ার ভেতরে খাবার টেবিলে বসেই ধূমপান করছে কিছু শিক্ষার্থী।

মাস্টার্সে অধ্যয়নরত বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী কালের কণ্ঠকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর থেকে মানসম্মত একটি ক্যাফেটেরিয়ার অভাব অনুভব করছি। একটা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়া এতটা বাজে হতে পারে কল্পনাও করিনি। কোনরকম আধাপাকা একটি বিল্ডিং বানিয়ে রাখা হয়েছে। নিরাপদ পানির অভাব, নিম্নমানের খাবারের উচ্চ দাম, বসার জায়গা সংকটসহ আরো নানা সমস্যায় জর্জরিত এই ক্যাফেটেরিয়া। একজন অতিথি আসলে যে তাকে ক্যাফেটেরিয়ায় নিয়ে আপ্যায়ন করব সে পরিবেশ নেই। এর আগেও আমরা বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করেছি। কিন্তু, কোন কাজ হয়নি। আশা করি বর্তমান ভিসি স্যার মানসম্মত অত্যাধুনিক একটি ক্যাফেটেরিয়া নির্মাণের উদ্যোগ নিয়ে আমাদের মেজর এই সমস্যাটি সমাধান করবেন।

বিষয়টি নিয়ে ক্যাফেটেরিয়ার ম্যানেজার মো. ইউসুফ কামাল নিজেও উদ্বিগ্ন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, যতদূর জানি একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়া থাকে আধুনিক মানসম্মত। এই ক্যাফেটেরিয়ার সমস্যার শেষ নেই। দরজা, জানালা ভাঙা, চারপাশে আগাছায় ভরে গেছে, পানির লাইন নেই, বসার জায়গা সংকট, কয়েকটি ফ্যান নষ্টসহ আরো বেশ কয়েকটি সমস্যা আছে এখানে। উচ্চ পর্যায়ের গেস্টরা আসে এখানে। কিন্তু, মানসম্মত পরিবেশ না পেয়ে চলে যায়। আমরা চাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আধুনিক একটি ক্যাফেটেরিয়া নির্মাণ করুক।

খাবারের উচ্চমূল্যের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভর্তুকি দিয়ে আমাদের খাবারের মূল্য তালিকার একটি চার্ট করে দিক। আমরা সে মূল্যেই খাবার বিক্রি করব। আমাদের কোনো সমস্যা নেই। রাজনৈতিক প্রভাব দেখিয়ে অনেকেই বাকি খেয়ে টাকা দেয়না। কিছু বললে জিনিসপত্র ছুড়ে ফেলে দেয়।

ক্যাফেটেরিয়ার বিভিন্ন সমস্যার কথা স্বীকার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. দিদার-উল-আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, উপাচার্য হিসেবে এখানে যোগদানের পর বেশ কয়েকটি সমস্যা আমার চোখে পড়েছে। সমস্যাগুলো সমাধানের লক্ষ্যে আমি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। শিগগিরই ক্যাফেটেরিয়াটি সংস্কার এবং এর বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করব।
সময়োপযোগী আধুনিক মানসম্মত ক্যাফেটেরিয়া নির্মাণ করা হবে কি-না এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বর্তমান ক্যাফেটেরিয়াটি মানসম্মত নয়। আধুনিক মানসম্মত নতুন একটি ক্যাফেটেরিয়া নির্মাণ করার পরিকল্পনা আমাদের হাতে রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা