kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সোনারগাঁয়ে ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সোনারগাঁয়ে ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জে সোনারগাঁ উপজেলার মোগরাপাড়া চৌরাস্তার রহমত ম্যানশনে অবস্থিত সেবা জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় মালেকা বেগম (৩৫) নামে এক রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওই হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের দমদমা গ্রামের রুহুল আমিনের স্ত্রী মালেকা বেগমের পিত্তথলিতে পাথর ধরা পড়ায় বৃহস্পতিবার মোগরাপাড়া চৌরাস্তার রহমত ম্যানশনের ২য় তলায় অবস্থিত সেবা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। অপারেশনের জন্য কর্তৃপক্ষ ও রোগীর স্বজনদের মধ্যে ২৫ হাজার টাকায় চুক্তি হয়। এ সময় চুক্তি মোতাবেক হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাক্তার কে এম রিয়াজ মোর্শেদ রোগীর পিত্তথলিতে অপারেশন করেন। এক পর্যায়ে রোগীর অবস্থান বেগতিক দেখলে ডাক্তার রোগীকে দ্রুত সানারপাড় প্রো-একটিভ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে কৌশলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় পালিয়ে যান। পরে রোগীর স্বজনরা মালেকা বেগমকে প্রো-একটিভ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। 

রোগীর স্বজনরা আরো জানান, সেবা জেনারেল হাসপাতালটি বিএনপি নেতা শাহ আলম মুকুল ও তার ভাই পাচঁ ভাই ও ভগ্নিপতি দেওয়ান ডাক্তার মালিকানাধীন এ হাসপাতালটি পরিচালিত হয়ে আসছে। তাদের হাসপাতালে ভালো ডাক্তার না থাকলেও যেকোনো অপারেশনের চুক্তি করে থাকেন। আমাদের রোগীরও অপারেশনের জন্য ২৫ হাজার টাকায় চুক্তি হয়। পরে তার অপারেশনের পরই রোগীর অবস্থা আশংকাজনক হয়ে পড়ে। 

নিহতের দেবর শোভন মিয়া জানান, তার ভাবী মালেকা বেগম সেবা জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তার কে এম রিয়াজ মোর্শেদের ভুল চিকিৎসায়ই মারা গেছে। পরে রোগীকে সানারপাড় প্রো-একটিভ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন। সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সোনারগাঁ সেবা জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার দিপু মিয়া জানান, রোগীর কোনো অপারেশন করা হয়নি।  শুধু মাত্র পিত্তথলি থেকে পাথর অপসারণ করা হয়েছে। 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ডাক্তার কে এম রিয়াজ মোর্শেদের সঙ্গে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। 

সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সলিমুল হক জানান, রোগীর স্বজনরা থানায় অভিযোগ করার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হালিমা সুলতানা হক জানান, ঘটনাস্থলে  লোকজন পাঠানো হয়েছে। আর ডা. কে এম রিয়াজ মোর্শেদ উপজেলা হাসপাতালের ডাক্তার নয়। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা