kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রাজশাহীর সীমান্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক

বিএসএফ সদস্য মারা গেছে কিনা নিশ্চিত নয় বিজিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:০৪ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বিএসএফ সদস্য মারা গেছে কিনা নিশ্চিত নয় বিজিবি

রাজশাহীর চারঘাট সীমান্তে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ শিকারের সময় ভারতীয় এক জেলেকে আটকের ঘটনায় গুলিনিময়ে বিএসএফ (ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী) মারা গেছে কিনা নিশ্চিত হতে পারেনি বিজিবি। আজ বৃহস্পতিবার রাতে বিজিবির রাজশাহী-১ ব্যাটালিয়নের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক ল্যাফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ এ কথা বলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সকালে বিজিবি-বিএসএফের মধ্যে গুলিবিনিময়ের পরে সন্ধ্যায় পতাকা বৈঠকে বিএসএফ দাবি করেছে, তাদের একজন সদস্য (হেড কনস্টেবল) মারা গেছেন। কিন্তু তারা এর বিপরীতে কোনো ভিডিও বা স্থিরচিত্রও দেখাতে পারেনি। তার পরেও বিষয়টি আমরা তদন্ত করে পদক্ষেপ নিতে চেয়েছি। তবে ভারতীয় গণমাধ্যম দাবি করেছে, বিজিবির গুলিতে বিএসএফ’র একজন হেড কনস্টেবল মারা গেছেন। ভারতীয় গণমাধ্যম ওই বিএসএফ সদস্যের ছবিও প্রকাশ করেছে। ভারতীয় গণমাধ্যমে বলা হয়, নিহতের নাম বিজয় ভান। সংঘর্ষের সময় তার মাথায় গুলি লাগে। আহত হয়েছেন আরো একজন। আহতের নাম রাজবীর সিং। তিনি বিএসএফ-এর ১১৭ নম্বর ব্যাটলিয়নের হেড কনস্টেবল। বর্তমানে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। 

সংবাদ সম্মেলনে বিজিবি’র এ কর্মকর্তা আরো জানান, সকালের ঘটনার পরে সন্ধ্যায় রাজশাহী ব্যাটালিয়ন কমান্ড্যান্ট এবং বিএসএফের ১১৭ ব্যাটালিয়ন কমান্ড্যান্ট পর্যায়ে সীমান্ত পিলার ৭৫/৩-এস হতে আনুমানিক ১ কিলোমিটার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে পদ্মা নদীর চর শাহরিয়ার বাঁধ নামক স্থানে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পতাকা বৈঠকে বিএসএফ কমান্ড্যান্ট দাবি করেন তাদের একজন সদস্য নিহত এবং একজন সদস্য আহত হয়েছেন। এ ব্যাপারে উভয় পক্ষ তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করার বিষয়ে একমত হন। এ ছাড়াও এ বিষয়ে আরো আলোচনার জন্য খুব শিগগিরই পতাকা বৈঠক করার বিষয়ে উভয় পক্ষ একমত হন। উভয় পক্ষের মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে পতাকা বৈঠক শেষ হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে বিজিবির ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, সীমান্ত পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে। কোনো পক্ষই সীমান্তে বাড়তি সদস্য মোতায়েন করেনি। 

বিজিবির সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সকাল আনুমানিক ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে বিজিবি’র রাজশাহী-১ ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ চারঘাট বিওপি’র দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় বিওপি হতে আনুমানিক ১ কিলোমিটার পশ্চিম দিকে এবং সীমান্ত পিলার ৭৫/৩-এস হতে ৫০০ মিটার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে চারঘাট থানাধীন শাহরিয়ার খাল নামক স্থানে (জিআর ৭২৮৮৫৮ মানচিত্র ৭৮ডি/১১) মা ইলিশ সংরক্ষণ কর্মসূচির আওতায় মৎস্য কর্মকর্তার উপস্থিতিতে পদ্মানদীতে অভিযান পরিচালনা করছিল। এ সময় মাছ শিকার করতে থাকা অবস্থায় ৩ জন জেলেকে আটক করার চেষ্টা করে বিজিবি। কিন্তু ২ জন পালিয়ে যায় এবং একজন জালসহ আটক করে নদীর এপারে নিয়ে আসা হয়। পরে আটককৃত ব্যক্তি ভারতীয় নাগিরক বলে নিশ্চিত হওয়া যায়।

এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর ১১৭ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কাগমারী ক্যাম্প হতে ৪ সদস্যের একটি টহল দল স্পিডবোটযোগে অনুমতি ছাড়ায় শূন্য লাইন অতিক্রম করে অবৈধভাবে ৬০০-৬৫০ গজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে নদীর এপারে বিজিবি টহল দলের নিকট আসে। একপর্যায়ে তারা আটককৃত ভারতীয় নাগরিককে ছেড়ে দেওয়ার জন্য বলে। বিজিবি টহল দল আটক ভারতীয় নাগরিককে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হবে বলে জানায়। কিন্তু বিএসএফ সদস্যরা ভারতীয় নাগরিককে বিজিবির নিকট হতে নিয়ে মারধর করে এবং তাকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এতে বিজিবি সদস্যরা বাধা প্রদান করলে বিএসএফ সদস্যরা বিজিবি’র ওপর আনুমানিক ৬-৮ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার জন্য বিজিবি টহল দল পাল্টা ফাঁকা গুলি ছুড়লে করলে বিএসএফ সদস্যরা দ্রুত স্থান ত্যাগ করে চলে যায়।

আটককৃত ভারতীয় নাগরিকের নাম প্রণব মণ্ডল। তিনি ভারতের মুর্শিবাদ জেলার জলঙ্গী থানার ছিড়াচর গ্রামের বসন্ত মণ্ডলের ছেলে। তাদের নিকট থেকে বিজিবি টহল দল ৪ কেজি কারেন্ট জাল জব্দ করে। আটককৃত ভারতীয় নাগরিককে চারঘাট থানায় হস্তান্তর করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা