kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সবজির হাট চান্দিনার পানিপাড়া, ক্রেতা-বিক্রেতায় সরগরম

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ১৬:২৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সবজির হাট চান্দিনার পানিপাড়া, ক্রেতা-বিক্রেতায় সরগরম

সবজি এলাকা হিসেবে খ্যাত চান্দিনা উপজেলার কৃষকদের পণ্য সরবরাহকে সহজ করতে চান্দিনার পানিপানি বাংলা বাজারে বসছে সবজির হাট। সপ্তাহের প্রতি শনিবার ও মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হয় ওই হাটে সবজি বিকিকিনি। বিভিন্ন জেলা-উপজেলার পাইকারি ব্যবসায়ীরা আসেন গ্রামাঞ্চলের কৃষকদের সবজি কিনতে। কেউ আসেন বিদেশে রপ্তানি যোগ্য তাজা সবজি কিনতে। ওই হাটের সবজি দেশের রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করার পাশাপাশি রপ্তানিও হচ্ছে বিদেশে। 

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, চান্দিনা ও বরুড়া উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা রামমোহন বাজারটি দুইটি অংশে বিভক্ত। উত্তর-দক্ষিণের লম্বা সুবিশাল খালের পূর্বপাশে রামমোহন পুরাতন বাজার পশ্চিমে নতুন বাজার। পুরাতন বাজারটি বরুড়া উপজেলা সীমানায় এবং নতুন বাজারটি চান্দিনা সীমানায়। নতুন বাজারটিকে আবার কেউ কেউ পানিপাড়া বাংলা বাজার হিসেবে চেনেন। নতুন বাজারটি চান্দিনা উপজেলার পানিপাড়া গ্রামে অবস্থানের কারণে পানিপাড়া বাংলা হিসেবে পরিচিতি।

সপ্তাহের প্রতি রবিবার ও বুধবার রামমোহন বাজারের নির্ধারিত হাট থাকলেও সম্প্রতি পানিপাড়া বাংলা বাজারে সপ্তাহের প্রতি শনিবার ও মঙ্গলবার সকাল থেকে সবজির হাট বসেছে। চান্দিনা উপজেলার পানিপাড়া, হাড়িপাড়া, ভাকসার, করতলা, মাদারপুর, কামাখোলা, ভোমরকান্দি এবং বরুড়া উপজেলা ইটাখোলা, নবীপুর, মুকেন্দপুর, গোপালনগরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের কৃষক তাদের সবজি নিয়ে হাটে আসেন। ক্রেতা ও বিক্রেতা সরগরম থাকায় বিকিকিনিও জমেছে বেশ।  

হাড়িপাড়া গ্রামের কৃষক রহমত আলী বলেন, আমি দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে সবজি চাষ করি। আগে সবজি নিয়ে রাতেই বুড়িচং উপজেলার নিমসারে যেতে হতো। পানিপাড়া বাংলা বাজারে সবজির হাট বসায় এখন আর দূরে গিয়ে সবজি বিক্রি করতে হয় না। এ বাজারেই আসে অনেক পাইকারি ব্যবসায়ী।

পাইকারি ব্যবসায়ী কালাম জানান, এ হাটের কৃষকরা জমি থেকে সরাসরি হাটে নিয়ে আসে তাদের সবজি। এখানকার তাজা সবজি তারা বিভিন্ন জেলায় নিয়ে বেশ ভালোভাবে বিক্রি করতে পারে। 

বাজারের ইজারাদার মানিক মেম্বার জানান, পানিপাড়া বাংলা বাজারটি দীর্ঘ প্রায় ৩৫ বছরের বাজার। তবে শনিবান ও মঙ্গলবার সবজির হাট বেশ জমে ওঠছে। এখানে যেমন সুবিধা পাচ্ছে কৃষক, তেমন সুবিধা পাচ্ছে ক্রেতারাও। ক্রেতা ও বিক্রেতা যাতে হয়রানির শিকার না হয় সেই জন্য কঠোর নজরদারি রয়েছে। আগামীতে আরো বড় আকারে হাট জমবে এমনটাই প্রত্যাশা করি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা