kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফেসবুকে সম্পর্ক গড়ে স্কুলছাত্রীকে প্রতারণা

চট্টগ্রামে খালুসহ তিনজন গ্রেপ্তার, শেষে জেলে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০২:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চট্টগ্রামে খালুসহ তিনজন গ্রেপ্তার, শেষে জেলে

ফেসবুকে এক স্কুলছাত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ইন্টারনেটে ‘অশ্লীল ছবি’ ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে টাকা দাবির অভিযোগে ওই ছাত্রীর খালুসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। চট্টগ্রাম নগরের পাহাড়তলী থানা-পুলিশের গ্রেপ্তার করা ওই তিনজন হলেন ছাত্রীর খালু জামাল হোসেন এবং তাঁর দুই বন্ধু তানভীর আহমেদ রিপন ও রাজীব।

পাহাড়তলী থানা-পুলিশ জানায়, গত মঙ্গলবার নগরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তারকৃত ওই তিনজনের কাছ থেকে তিনটি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়। এসব সেটে ওই কিশোরীর ব্যক্তিগত বিভিন্ন আপত্তিকর ছবি পাওয়া গেছে। মূলত খালুই নিজের পরিচয় গোপন করে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করেন। ঘটনার শিকার কিশোরী স্থানীয় একটি বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত। 

পাহাড়তলী থানার উপপরিদর্শক পলাশ ঘোষ জানান, জামাল ফেসবুকে ছদ্মনামে একটি আইডি খুলে ওই কিশোরীকে বন্ধুত্বের অনুরোধ পাঠান। কিশোরী সেটা গ্রহণের পর নিয়মিত কথাবার্তার মাধ্যমে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে জামাল তাকে মেসেঞ্জারে ‘আপত্তিকর’ ছবি পাঠানোর অনুরোধ করেন। কিশোরী অপারগতা জানালে জামাল তার আইডি থেকে কিছু ছবি নিয়ে সেগুলো এডিট করে অশ্লীল হিসেবে তৈরি করে তার মেসেঞ্জারে পাঠান। পরে সেগুলো ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন।

পুলিশ জানায়, এতে ওই ছাত্রী ভয় পেয়ে তার ব্যক্তিগত কয়েকটি আপত্তিকর ছবি জামালের মেসেঞ্জারে দেয়। তখন জামাল সেই ছবি প্রকাশের হুমকি দিয়ে টেলিফোনে কিশোরীর মায়ের কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অপারগতা জানালে জামাল ওই কিশোরীর ছবি দিয়ে একটি ফেসবুক আইডি খোলেন এবং সেটা কিশোরীকে দেখিয়ে আপত্তিকর ছবিগুলো প্রকাশের হুমকি দেন। এরপর গত মঙ্গলবার রাতে একটি মেমোরি কার্ড কিশোরীর বাসায় পাঠান, যাতে আপত্তিকর ছবিগুলো ছিল।

কিশোরীর পরিবারের সদস্যরা ওই রাতেই এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ দেন। থানা অভিযোগ গ্রহণ করে এবং কিশোরী ও তার মায়ের বক্তব্য শুনে আসামিদের গ্রেপ্তার শুরু করে। যে মোবাইল নম্বর থেকে কিশোরীর মাকে ফোন করে টাকা দাবি করা হয়েছিল, সেই নম্বরের সূত্রে প্রথমে জামাল ও পরে অন্য দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

এ ঘটনায় কিশোরীর মায়ের দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় তিনজনকে গতকাল বুধবার বিকেলে চট্টগ্রাম আদালতে হাজির করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে এসআই পলাশ জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা