kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গফরগাঁওয়ে মাথা ব্যথায় অতিষ্ট হয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা!

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ২২:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গফরগাঁওয়ে মাথা ব্যথায় অতিষ্ট হয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা!

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মাথা ব্যাথায় অতিষ্ট হয়ে বিথী রানী বর্মণ (২২) নামে এক গৃহবধূ ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে আজ বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার টাঙ্গাব ইউনিয়নের ভরপুর গ্রামে। খবর পেয়ে পাগলা থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার টাঙ্গাব ইউনিয়নের ভরপুর গ্রামের বকুল চন্দ্র বর্মণের স্ত্রী বিথী রাণী বর্মণের প্রায় এক বছর পূর্বে জরায়ু সমস্যা জনিত কারণে অপারেশন হয়। কিন্তু অপারেশনের পর তিনি সুস্থ হয়ে উঠলেও শুরু হয় মাথা ব্যথা। সব সময় মাথা ব্যথায় কাতরাতেন। ব্যথায় অতিষ্ট হলে বিথী রাণী ক্ষিপ্ত হয়ে মানুষের সাথে রুঢ় আচরণ করতেন। অনেক সময় ব্যথায় ছটফট করে স্বামীকে ‘আমি মরে যাব, আমি বাঁচব না’ বলতেন। এ অবস্থায় দরিদ্র পরিবারের পক্ষ থেকে স্বর্ণালংকার বিক্রি করে তার মাথা ব্যাথার চিকিৎসার উদ্যোগ নেওয়া হয়।

বুধবার সন্ধ্যার পূর্বে তিনি ব্যাথায় অতিষ্ট হয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে কিছুক্ষণ পর ফিরে আসেন। সন্ধ্যায় বসত ঘরের দরজা বন্ধ করে ধরনার সাথে গলায় দড়ি বেঁধে ফাঁসিতে আত্মহত্যা করেন। পরে বাড়ির লোকজন ঘরের দরজা বন্ধ দেখে ডাকাডাকি করে সারা না পেয়ে জানালা দিয়ে দেখেন তিনি ফাঁসিতে ঝুলছেন। খবর পেয়ে পাগলা থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। 

স্থানীয় সংরক্ষিত ইউপি সদস্য অঞ্জলী রাণী বর্মণ বলেন, সব সময় মেয়েটি মাথা ব্যথায় কাতরাতো। সম্ভবত ব্যথায় অতিষ্ট হয়ে আত্মহত্যা করেছে।

পাগলা থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিনুজ্জামান খান বলেন, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধারের জন্য অফিসার পাঠিয়েছি। এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা