kalerkantho

শনিবার। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৫ ডিসেম্বর ২০২০। ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বেশির ভাগ সৌরবাতিই জ্বলে না

জয়নাল আবেদিন বাবুল, পীরগঞ্জ   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১১:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বেশির ভাগ সৌরবাতিই জ্বলে না

রাতের বেলায় বেশির ভাগ সড়কের সৌরবাতি জ্বলে না ঠাকুরগাওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার কোষারানীগঞ্জ ইউনিয়নে। এলজিএসপির টাকায় নিম্নমানের সৌরবাতি বসানোর কারণে ১ বছরের মধ্যেই এমন অবস্থা হয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তবে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বলছেন, বেশির ভাগ নয়, দু-একটির সমস্যা হয়েছে।

কোষারানীগঞ্জ ইউনিয়নের আকাশিল গ্রামের ডাক্তার নরেশ, ফুলবাড়ি গ্রামের জব্বার ও ভামদা গ্রামের খোকা রাম জানায়, তাদের এলাকায় রাস্তার পাশে স্থাপন করা সৌরবাতিগুলো স্থাপনের পর রাতের বেলায় কিছু দিন ভালোই জ্বলছিল। এতে সাধারণ মানুষ বেশ উপকৃত হয়। কিন্তু কয়েক মাস পর সেগুলো আর জ্বলে না। দু-একটা জ্বলে আর নেভে। বাতিগুলো ঠিক করার জন্য চেয়ারম্যানকে জানানো হয়েছে। এখনো ঠিক করা হয়নি। 

তাদের মতে সুন্দর আলীর মোড়, ফুলবাড়ি গোরস্তান, নাকাটি ব্রিজের পশ্চিম পাশের সহ ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়কে স্থাপন করা সৌরবাতি জ্বলে না। এতে রাতের বেলায় সাধারণ মানুষের চলাচলে খুব অসুবিধা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় প্রতিটি সৌরবাতি স্থাপনে খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা করে। ওই টাকায় বাতি স্থাপন করা হলে অন্তত ৫ বছর জ্বলত। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তা না করে কম টাকায় নিম্নমানের সৌরবাতি স্থাপন করায় এক বছর যেতে না যেতেই তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। জ্বলছে না।

অভিযোগ বিষয়ে কোষারানীগঞ্জ ইউনিয়ন চেয়রম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, নিম্নমানের নয়, বিধি মোতাবেক সৌরবাতি কেনা হয়েছে। বাতিগুলো মোটামুটি ভালো আছে। দু-একটির সমস্যা হয়েছে আর এমনটা হতেই পারে। শিগগিরই ঠিক করা হবে।

ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, গত অর্থবছরে এলজিএসপির বরাদ্দ থেকে ওই ইউনিয়নরে বিভিন্ন সড়কে ২৫টির মতো সৌরবাতি স্থাপন করা হয়েছে। প্রকল্পের মাধ্যমে স্থাপন করা বাতিগুলো ৫ বছর ওয়ারেন্টির কথা বলা হয়েছে। সমস্যা হলে কম্পানির ঠিক করে দেওয়ার কথা। তাদের জানানো হয়েছে। নষ্ট হয়ে যাওয়া বাতিগুলো হয়তো কিছু দিনের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা