kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মুকসুদপুরে কুমার নদে হাত-পা বাঁধা লাশ

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১০:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুকসুদপুরে কুমার নদে হাত-পা বাঁধা লাশ

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শাহ আলম শেখ (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে হাত-পা বেঁধে নদীতে ফেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। ধারণা করা হচ্ছে প্রতিপক্ষের লোকজন তার হাত-পা বেঁধে নদীতে ফেলে দেয়।

গত মঙ্গলবার রাতে মুকসুদপুর উপজেলার গোহালা ইউনিয়নের উত্তর গঙ্গারামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। শাহ আলম ওই গ্রামের মৃত আব্দুল খালেক শেখের ছেলে। নিহত শাহ আলম বর্তমান চেয়ারম্যান সফিকুল আলম মোল্লার অনুসারী।

পুলিশ ও পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, মুকসুদপুর উপজেলার গোহালা ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার সকালে সিন্দিয়াঘাট বাজারে সাবেক চেয়ারম্যান লিটন বয়াতির অনুসারি ও বর্তমান চেয়ারম্যান সফিকুল আলম মোল্লার অনুসারিদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় উভয় পক্ষের নারীসহ ১০ জন আহত হন। আহতদের নিকটতম মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয় ।

দুপুরে শাহ আলাম রাজৈর হাসপাতালে ভর্তি আহত চাচাতো বোন মিনাকে দেখে বাড়ির থেকে রওনা হয়ে নিখোঁজ হন। অনেক খোঁজাখুঁজির পরে এলাকাবাসী রাত পৌনে ৮টার দিকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় শাহ আলমকে কুমার নদে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে তাকে উদ্ধার করে রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

রাজৈর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রদীপ মন্ডল জানান, হাসপাতালে আনার পূর্বেই শাহ আলম মারা গেছেন। 

মুকসুদপুরের সিন্দিয়াঘাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি আবুল বাসার শাহ আলমের হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধারের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারকে দেয়া হবে। তাদের অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। এ ব্যপারে পুলিশ ইতোমধ্যে এলাকায় খোঁজ-খবর নেয়া শুরু করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা