kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কক্সবাজারে অর্ধশত মাদারগাছ কর্তন

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০৩:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কক্সবাজারে অর্ধশত মাদারগাছ কর্তন

ছবি: কালের কণ্ঠ

কক্সবাজার শহরে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ে (আরআরআরসি) প্রায় ৫০টি মাদারগাছ কেটে ফেলা হয়েছে। পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো বলছে, গাছগুলো কাটায় শহরের সৌন্দর্য নষ্ট হয়েছে। পরিবেশেরও মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে।

কক্সবাজার শহরের সমুদ্রসৈকতসংলগ্ন সড়কের পাশে অবস্থিত শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ে বিভিন্ন প্রজাতির দেড় শতাধিক গাছ রয়েছে। তিন দিন ধরে গাছ কাটা হচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ৫০টি গাছ কাটা হয়েছে। এর মধ্যে বেশির ভাগ হচ্ছে মাদারগাছ। এসব গাছের বয়স ৪০ বছরের বেশি হবে। 

এ ব্যাপারে কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা দীপু কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এটা দুঃখজনক ঘটনা। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের দিক থেকে শহরের কয়েকটি স্থাপনার মধ্যে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয় অন্যতম। বিভিন্ন প্রজাতির প্রচুর গাছ রয়েছে এখানে। কিন্তু হঠাত্ এ কার্যালয়ের গাছ কেটে ফেলার কারণে সৌন্দর্যহানি হওয়ার পাশাপাশি পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।’ তিনি এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট আইনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান। 

গাছ কাটার অনুমতি নেওয়া হয়েছে কি না জানতে চাইলে কক্সবাজার বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (দক্ষিণ) হুমায়ুন কবির কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ে গাছ কাটার ব্যাপারে অনুমতি নেওয়া হয়নি। গাছ কাটার বিষয়টিও আমার জানা নেই।’

তিনি বলেন, গাছ কাটার জন্য যথাযথ কারণ দেখিয়ে অনুমতি নিতে হবে। এরপর আইন অনুযায়ী গাছ কাটার আগে দরপত্র আহ্বান করতে হবে। দরপত্র কমিটিতে বন বিভাগ ও জেলা প্রশাসকের একজন প্রতিনিধি রাখতে হবে। এ ছাড়া আরো কিছু বিধি মেনে গাছ কাটতে হবে।

গাছ কাটার বিষয়টি স্বীকার করে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) মাহবুব আলম তালুকদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এখানে মৃতপ্রায় কিছু গাছ রয়েছে। আর কিছু গাছের কারণে অফিস ভবনের ক্ষতি হচ্ছে। এ রকম হেলে পড়া, ভেঙে যাওয়া ও মৃতপ্রায় কিছুসংখ্যক গাছ কাটা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, পুনরায় গাছ লাগানো হবে। বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগিয়ে এলাকার সৌন্দর্য বর্ধন করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা