kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চট্টগ্রামে আইজিপি ক্রাইম কনফারেন্স

ওসিদের ‘কুতুব উদ্দিনের’ ভূমিকায় দেখতে চান আইজিপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০২:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওসিদের ‘কুতুব উদ্দিনের’ ভূমিকায় দেখতে চান আইজিপি

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের (ওসি) কুতুব উদ্দিনের ভূমিকায় দেখতে চান পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। পুলিশের উপপরিদর্শক থেকে পর্যায়ক্রমে ডিআইজি হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া কুতুব উদ্দিন অপরাধ দমনের দক্ষতা ও জনবান্ধব পুলিশিংয়ের কারণে পুলিশ বাহিনীর রোল মডেলে পরিণত হয়েছেন। তিনি প্রায় ১৬ বছর আগে অবসরে গেলেও পুলিশ বাহিনী তাঁকে গর্বের সঙ্গে স্মরণ করে মূলত তাঁর মহত্ কর্মগুণের কারণে। সেই কুতুব উদ্দিনের মতো ভূমিকা রাখবেন ওসিরা, এমন প্রত্যাশা প্রকাশ করেন আইজিপি। 

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ আয়োজিত আইজিপি ক্রাইম কনফারেন্সে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. জাবেদ তাঁর প্রত্যাশার কথা বলেন। নগর পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ মাহাবুবর রহমানের সভাপতিত্বে কনফারেন্সে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক। এ ছাড়া নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আমেনা বেগম, মোস্তাক আহমেদসহ পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

আইজিপি বলেন, ‘থানায় প্রতিদিন অসংখ্য লোক আসেন। ওসির সঙ্গে সাক্ষাত্ করেন। যদি থানার ওসি সেবাপ্রার্থীকে আন্তরিকতার সঙ্গে সেবা দেন, তাহলে সেবাপ্রার্থীরা খুশি হবেন এবং তাঁরা পুলিশের প্রতি আস্থাশীল হবেন। এ কারণে কুতুব উদ্দিনের মতোই পুলিশ দরকার, যাতে পুলিশের ভাবমূর্তি বাড়ে।’

পুলিশের সেবা আরো জনবান্ধব করতে থানার ডিউটি অফিসার পদে সহকারী উপপরিদর্শক পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের দায়িত্ব দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন আইজিপি। আজ বুধবার থেকেই নগরীর ১৬ থানায় এ নির্দেশনা কার্যকর হচ্ছে। এ ছাড়া থানায় আসা সেবাপ্রার্থীদের দেওয়া সেবার মান দেখভাল করার জন্য অতিরিক্ত উপকমিশনারের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। সেই নির্দেশনাও শিগগির কার্যকর হচ্ছে বলে জানিয়েছে সিএমপি।

জনবান্ধব পুলিশিংয়ে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে ওসিদের উদ্দেশে আইজিপি বলেন, ‘আপনারা প্রতিদিন যত মানুষের উপকার করার সুযোগ পান, অনেক পেশার মানুষ সারা বছরেও ততজন মানুষের উপকার করার সুযোগ পান না। আপনাদের এই সুযোগ কাজে লাগতে হবে।’

‘হ্যালো ওসি’র উদ্যোক্তা কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন আইজিপির উদ্দেশে বলেন, ‘আমরা নির্দেশনা অনুযায়ী জনবান্ধব পুলিশিং করছি। ইতিমধ্যে চট্টগ্রামে হ্যালো ওসি কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এখন ১৬ থানার ওসি নিজেরাই এলাকায় গিয়ে সাধারণ মানুষের অভিযোগ শোনেন এবং প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা