kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

প্রেমের টানে বাংলাদেশে ভারতীয় গৃহবধূ

সিলেট অফিস   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রেমের টানে বাংলাদেশে ভারতীয় গৃহবধূ

ছবি: কালের কণ্ঠ

প্রেমের টানে বাংলাদেশে চলে এসেছেন ভারতের এক গৃহবধূ। সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকার এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ভারতের সীমান্তবর্তী খাসিয়া সম্প্রদায়ের ওই গৃহবধূ। গত শনিবার খাসিয়া ওই গ্রহবধূকে গোপনে দেশে নিয়ে আসেন বাংলাদেশি যুবক ফিরোজ মিয়া (৩৮)।

এনিয়ে দুই দেশের সীমান্তবর্তী বাসিন্দাদের মধ্যে গত শনিবার থেকেই উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এ ঘটনার জেরে গতকাল মঙ্গলবার এক বাংলাদেশি নাগরিক ও অর্ধ শতাধিক গরু ভারতে নিয়ে গেছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

জানা যায়, ফিরোজ মিয়ার (৩৮) উপজেলার টিপরাখলা সীমান্তের বাসিন্দা হারিছ উদ্দিনের ছেলে। তিনি বিবাহিত। তার সঙ্গে পালিয়ে আসা নারী ভারতের এসপিটিলা এলাকার হেওয়াইবস্তির বাসিন্দা চংকর খাসিয়ার স্ত্রী।

স্থানীয়রা জানান, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত রবিবার জৈন্তাপুর সীমান্তের ১২৮৮ নম্বর আন্তর্জাতিক পিলার এলাকায় দুই দেশের পতাকা বৈঠক হয় এবং বৈঠকে দুই দিনের মধ্যে ভারতীয় নারীকে ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়।

এদিকে, দুই দিন পেরিয়ে যাওয়ার পরও ওই নারীকে ফেরত না দেওয়ায় মঙ্গলবার বিকেলে ১২৮৮ নম্বর আন্তর্জাতিক পিলারের ৩এস পিলার হতে ৬এস পিলার এলাকা দিয়ে ভারতীয় হেওয়াই বস্তির খাসিয়ারা বাংলাদেশ সীমান্তরেখার টিপরাখেলা গ্রামের তজম্মুল আলীর ছেলে আব্দুন নূরকে (৪৫) এবং অর্ধশতাধিক গরু ধরে নিয়ে যায়। 

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ১৯ বিজিবি’র জৈন্তাপুর ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার আব্দুল কাদির, নিজপাট ইউনিয়নের সদস্য মনসুর আহমদ ও আব্দুল হালিম। গরু ধরে নিয়ে যাওয়া এবং নারীকে ফিরিয়ে না দেওয়াকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নিজপাট ইউনিয়নের সদস্য মনসুর আহমদ বলেন, ‘দুদিনের মধ্যে ওই খাসিয়া নারীকে ফেরৎ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ফিরোজের পরিবার কথা না রাখায় ভারতীয় খাসিয়ারা উত্তেজিত হয়ে বাংলাদেশে সীমান্ত রেখা থেকে বেশ কিছু গরুসহ আব্দুন নুরকে ধরে নিয়ে যায়।’

সীমান্তে বিজিবি সতর্ক অবস্থায় রয়েছে বলে জানা গেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা