kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গভীর রাতে ইলিশসহ আটক ১৫, কারাদণ্ড

মারুফ হোসেন   

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ১৬:৫৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গভীর রাতে ইলিশসহ আটক ১৫, কারাদণ্ড

৯ থেকে ২৯ অক্টোবর পর্য়ন্ত নদীতে ইলিশ শিকার, ক্রয়-বিক্রয়, মজুদ করার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সরকার। মানিকগঞ্জের শিবালয় ও দৌলতপুর উপজেলার যমুনা নদীর অংশে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কিছু অসাধু মৌসুমি জেলে অবাধে নদীতে মা ইলিশ শিকার করে ক্রয়-বিক্রয় করছে। এর মধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। রবিবার গভীর রাতে শিবালয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে যমুনায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় ইলিশ ক্রয় করে নিয়ে আসার সময়  ১৫ জনকে আটক করা হয়। পরে সোমবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যেমে ১৫ জনকে এক বছর করে কারাদণ্ড দেন। 

আটকৃতরা হলেন শিবালয় উপজেলার সমেষঘর তেওতা গ্রামের মো. সালাম মোল্লা (৪৬), মো. মামুন মুন্সি (৩৫), মো. তোরাব আলী (৩৬), মো. আশরাফ শেখ (৩৭) , মো. চাঁন মিয়া (৪০), মো. হাজাজ (৪২), মো. তৈয়ব আলী (৫০), নিহালপুরের মো. আক্কাস শেখ (৫২), বকুল শেখ (৪৫) পান্নু ফকির (৪২), আলোকদিয়ার মো. বাদল মিয়া (২২), মো. সাইফুল (১৯), দৌলতপুর উপজেলার রেহাদুর্গাপুর গ্রামের মো. ছানোয়ার (২৬)  রেহাদুর্গাপুর, পাবনার দাসপাড়ার মহিব মন্ডল (৩২), আমিনপুরের মো. আবু সালাম মোল্লা (৫৮)। 

জানা যায়, উপজেলার আলোকদিয়া চর থেকে তারা ইলিশ ক্রয় করে নদী পার হয়ে আসছিল। এ সময় নদীতে বেশ কিছু জেলে ইলিশ শিকার করছিল। পরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে ধরার জন্য  ধাওয়া দিলে অনেকে জাল ফেলে পালিয়ে যায়। আটকৃতরা সখের বশে ওই জালগুলো তুলতে থাকে এবং জাল থেকে ইলিশ ছাড়ানোর সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদেরকে হাতেনাতে আটক করে। পরে তাদের কাছ থেকে ৮০ কেজি মা ইলিশ ও চার হাজার মিটার জাল জব্দ করা হয়। 

শিবালয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এফ এম ফিরোজ মাহমুদ কালের কণ্ঠকে জানান, যমুনায় গভীর রাতে অভিযান কালে ১৫ জনকে ইলিশ শিকারের সময় হাতেনাতে আটক করা হয়। পরে সোমবার দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে প্রত্যেককে এক বছর করে কারাদণ্ড দিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

উল্লেখ্য, এ পর্যন্ত শিবালয়ের যমুনায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ শিকার করার দায়ে ৩৮ জনকে এক বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। পাশাপাশি এক শ কেজি ইলিশ ও দেড় লাখ মিটার কারেন্ট জাল জব্দসহ ইলিশ ধরার ৬টি ট্রলার ধ্বংস করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা