kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

তিন র‌্যাব সদস্যসহ পাঁচ জনকে ফেরত দিয়েছে বিএসএফ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা   

১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৮:৫৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তিন র‌্যাব সদস্যসহ পাঁচ জনকে ফেরত দিয়েছে বিএসএফ

ফাইল ছবি

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢুকে মাদক কারবারিকে ধরতে গিয়ে আটক বাংলাদেশের র‌্যাবের তিন সদস্য ও দুই নারী সোর্সসহ পাঁচ জনকে ফেরত দিয়েছে ভারতীয় বিএসএফ।

আজ বৃহস্পতিবার বিকালে তাদের ফেরত দেওয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে ওসি শাহজাহান কবির জানিয়েছেন, র‌্যাবের সদস্যদের সাথে থাকা অস্ত্র ও অন্যান্য জিনিষপত্র ফেরত পাওয়া গেছে। তবে একজনের পরিচয়পত্র পাওয়া যায়নি। বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় ব্রাহ্মণপাড়ার শশীদলের আশাবাড়ির ২০৫৯ সীমান্ত পিলায় এলাকা দিয়ে ভারতের অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে ভারতীয়রা তাদের আটক করে ৭৪ বিএসএফের কাছে সোপর্দ করে।

জানা গেছে, আটক তিন র‌্যাব সদস্য হলেন কনস্টেবল রিদান বড়ুয়া, আবদুল মজিদ ও সৈনিক মো. ওয়াহিদ। র‌্যাবের সঙ্গে থাকা দুই নারী সোর্স হলেন কুমিল্লার শুভপুরের জাকির হোসেনের স্ত্রী লিজা আক্তার ফুফি, সুজানগরের মাইনুদ্দিনের স্ত্রী মনি বেগম।

সূত্র জানায়, কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদলের আশা বাড়ি সীমান্ত দিয়ে ভারতে ঢুকে জলিল ও হাবিলের বাড়িতে যায় র‌্যাবের দুই নারী সোর্স। তাদের বাড়িতে গিয়ে দুই সোর্স মাদক সেবন (ফেনসিডিল) শেষে মাদক ক্রয় করতে চাইলে তারা বিক্রি করতে রাজি হয়। পরে পাঁচ লাখ টাকার জাল টাকা নিয়ে ভারতের ২০৫৯ পিলালের ১০ গজ ভিতরে ঢুকে ব্যবসায়ী জলিল ও হাবিলকে আটকের চেষ্টা করে র‌্যাব। খবর পেয়ে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবের তিন সদস্যসহ দুই নারী সোর্সকে আটক করে মারধর শুরু করে। র‌্যাব সদস্যদের কাছে দুইটি পিস্তল, ১৪ রাউন্ড গুলি ও তিনটি হ্যান্ডকাপ ছিল। এদের দুজন পুলিশের সদস্য এবং একজন সেনাবাহিনীর সদস্য।

বিকেলে আশাবাড়ি সীমান্তে পতাকা বৈঠকের পর তাদের ফেরত দেয় বিএসএফ। স্থানীয় সূত্র জানায়, আটককৃত ব্যাপক মারধর করা হয়।

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া থানার ওসি শাহাজান কবির জানান, বিকেলে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তাদের ফেরত দেওয়া হয়েছে। সবার সব মালামাল বুঝে পেয়েছে। তবে রিদান বড়ুয়ার আইডি কার্ডটি পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা