kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

ঢাবিতে ভর্তি

সেই চুমকির পাশে দাঁড়ালেন চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার

পটিয়া ( চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১০:৫৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেই চুমকির পাশে দাঁড়ালেন চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েও ‘টাকার অভাবে ভর্তি হতে পারছে না চুমকি চৌধুরী’ শীর্ষক কালের কণ্ঠে প্রকাশিত প্রতিবেদন পড়ে এ শিক্ষার্থীকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা। এ সময় চুমকি চৌধুরীর মাতা তাপসী চৌধুরী, কালের কণ্ঠের পটিয়া প্রতিনিধি আবদুল হাকিম রানা উপস্থিত ছিলেন।

আর্থিক অনুদান প্রদানকালে জেলা পুলিশ সুপার বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড। এখানে শিক্ষাজীবন শুরু করার সুযোগ লাভ করা সত্যিই গৌরবের। তবে এখানে পজেটিভ ও নেগেটিভ দুটি ধারাই আছে। সেক্ষেত্রে শিক্ষার্থীকেই বেছে নিতে হবে তার লক্ষ্য কী হবে। তিনি যদি প্রকৃতপক্ষে শিক্ষা অর্জন করতে চান তাহলে তার সামনে সেই পথ যেমন খোলা তেমনি সে সন্ত্রাসী বা খারাপ প্রকৃতির কিছু হতে চাইলে ও তার সামনে রয়েছে সেই কাজের হাতছানি ।

তিনি নিজে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সাবেক শিক্ষার্থী হিসেবে বলেন, আমি আমার শিক্ষাজীবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করার জন্য ভর্তি হয়েছিলাম। আমাকে কোনো নেগেটিভ বিষয় আকৃষ্ট করতে পারেনি। আমি দুটি টিউশনি করেই পড়ার খরচ জোগাড় করে নিয়েছিলাম। তাই বলতে চাই, পড়ালেখা করতে চাইলে অর্থ কোনো বাধা হবে না। তিনি চুমকি চৌধুরীকে প্রয়োজনে আরো আর্থিক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন।

তিনি গত সোমবার কালের কণ্ঠের ২য় রাজধানী প্রতিদিনে প্রকাশিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েও টাকার অভাবে ভর্তি হতে পারছে না চুমকি শীর্ষক প্রতিবেদন পড়েই চুমকির শিক্ষা কার্যক্রমসহ সার্বিক বিষয়ে খোজ খবর নিতে শুরু করেন। গতকাল তিনি নগরীর হালিশহরস্থ জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে চুমকির পরিবারকে ডেকে এনে চুমকির হাতে শিক্ষা সহায়তার নগদ অর্থ তুলে দেন।

এ ছাড়াও কালের কণ্ঠে প্রকাশিত প্রতিবেদন পড়ে পটিয়া সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মল হক, পৌর মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশীদ, পটিয়া থানার অফিসার ইনর্চাজ মো. বোরহান উদ্দিন চুমকির শিক্ষা এগিয়ে নিতে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা