kalerkantho

বুধবার । ১৬ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৬ সফর ১৪৪১       

কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, কথিত স্বামী পলাতক

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৩:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, কথিত স্বামী পলাতক

রাজশাহীর নগরীর উপশহর এলাকায় ছয়তলার একটি ভবন থেকে এক কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘরের ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না প্যাঁচিয়ে ওই কলেজছাত্রী আত্মহত্যা করে বলে ধারণা করছে পুলিশ। তবে পরে তাঁর কথিত স্বামী এসে পরিস্থিতি টের পেয়ে ভয়ে বাড়ির বাইরে দরজায় তালা ঝুলিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। ওই ছাত্রীর নাম ফাহিমা খাতুন (২২)। তিনি জেলার চারঘাট উপজেলার হলিদাগাছি এলাকার আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী।

তাঁর কথিত স্বামীর নাম শামসুল ইসলাম আলম। তিনি বাগমারা উপজেলার বালানগর এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে। তাঁরা বছর খানেক আগে স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে রাজশাহী নগরীর উপশহর এলাকার এক নম্বরে সেক্টরের (বি-৩০০ নম্বর) বাড়টির ৬তলা ভাড়া নেন।

তবে ফাহিমা খাতুনের দুলাভাই পরিচয় দানকারী এক ব্যক্তি মোবাইল ফোনে পুলিশের কাছে দাবি করেছে, তাঁর শ্যালিকার বিয়ে হয়নি বলে তাঁরা জানেন। 
 
নগরীর বোয়ালিয়া থানার ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ কালের কণ্ঠকে জানান, বাড়িটির বাইরের দরজায় তালা ঝুলানো ছিল। কিন্তু ঘরের ভিতর থেকে দরজা লাগানো ছিল। এই অবস্থায় প্রতিবেশীরা পুলিশকে খবর দেয় ওই বাড়ির গৃহবধূর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তাকে হত্যার পর স্বামী পালিয়েছে। পরে পুলিশ বাইরের দরজা ভেঙে বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করে। কিন্তু যে ঘরে ফাহিমা খাতুন আত্মহত্যা করে, সেই ঘরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ ছিল। পরে পুলিশ দরজার তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে ফাহিমা খাতুনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। তবে তাঁর কথিত স্বামী পলাতক রয়েছে।

ওসি বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ওই কলেজছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। তবে বাড়িতে ঢুকে তার কথিত স্বামী বিষয়টি টের পেয়ে ভয়ে পালিয়ে গেছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন হবে হয়তো। মেয়েটির কথিত স্বামীকে আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা