kalerkantho

বুধবার । ১৬ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৬ সফর ১৪৪১       

প্রক্টরের পরিবর্তনের দাবিতে উত্তাল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৮:১৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রক্টরের পরিবর্তনের দাবিতে উত্তাল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে সদ্য যোগদানকারী প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানকে পরিবর্তনের দাবিতে আন্দোলন করছে ছাত্রলীগের একাংশ। দুপুর দেড়টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক আটকে আন্দালন করেন তারা।

এর আগে শনিবার প্রক্টর পরিবর্তনের জন্য এক দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন তারা। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস সময় শেষ হলেও প্রক্টরকে পরিবর্তন করেনি প্রশাসন। আন্দোলনকারীদের কাছে সাত দিনের সময় চেয়েছে কর্তৃপক্ষ।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানের পদত্যাগের দাবিতে বেলা একটার দিকে মিছিল নিয়ে উপাচর্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারীর কার্যালয়ে যায় ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা অধ্যাপক ড. মাহবুবের বিরুদ্ধে বিগত সময়ে প্রক্টরের দ্বায়িত্ব পালনকালে তার নির্দেশে ছাত্রলীগের ওপর গুলি বর্ষণ, শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যের হোতাসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে প্রক্টর পরবির্তনের দাবি জানায়।

এ সময় ছাত্রলীগ নেতারা বলেন, আমরা এর আগেও একই অভিযোগে অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানের অভিযোগ তুলে তাকে প্রক্টর পদে না দেওয়ার অনুরোধ করেছিলাম। আমাদের অনুরোধ না রেখে আপনারা তাকে নিয়োগ দিয়েছেন। ছাত্ররা এবং ছাত্রলীগ তাকে প্রক্টর হিসেবে মানে না। গতকালও (শনিবার) আপনাদেরকে প্রক্টর পরিবর্তনের এক দিনের আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছিলো। এবার সিদ্ধান্ত না দেওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন করবো।

প্রশাসন থেকে বের হয়ে প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগ কর্মীরা। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক আটকে দেন তারা। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুপুর শিফটের গাড়ি ক্যাম্পাসে ছেড়ে যায়নি। এতে বিপাকে পরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। মিছিল নিয়ে বেলা আড়াইটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে গিয়ে অবস্থান করে। এ সময় আন্দোলনকারীরা প্রক্টরকে ড. মাহবুবকে নিয়ে অকথ্য ভাষায় স্লোগান দেন।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস সময় (সাড়ে ৪টা) শেষ হলেও প্রক্টর পরবির্তন করেনি প্রশাসন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অবরুদ্ধ করে উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। তবে বেলা সাড়ে ৩ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক খুলে দেয় তারা। সংবাদ লেখা পর্যন্ত প্রক্টরের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন করছে ছাত্রলীগ।

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, আমি সাত দিনে ক্যাম্পাস মাদক ও অছাত্রমুক্ত করার প্রত্যায় নিয়ে দ্বায়িত্ব গ্রহণ করেছি। মাদকের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেওয়ায় তারা আমার বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে তারা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জিম্মি করে কোনো দাবি আদায় করা যায় না। ছাত্রলীগকে বলা হয়েছে একটু সময় দিতে। তাছাড়া অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানকে আমরা অন্তর্বর্তীকালীন হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে যোগ্য কাউকে খুঁজে পেলে নতুন প্রক্টর নিয়োগ দেব।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা