kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

৪০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পলাতক প্রতারক বাবলু ধরা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি    

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১১:১৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৪০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পলাতক প্রতারক বাবলু ধরা

টার্কি মুরগি পালন করলে তিন মাসের মধ্যে আকর্ষণীয় লাভ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে প্রায় ৪০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেন রংধনু টার্কি ফার্মস কম্পানির চেয়ারম্যান প্রতারক বাবলু রায় (৪৫)। ওই টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পর স্ত্রী মুক্তি রানীসহ (৪০) গোয়েন্দা পুলিশের হাতে ধরা পড়েছেন তিনি।

গতকাল শনিবার দুপুরে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার তাজমহল রোড এলাকা থেকে স্ত্রীসহ গ্রেপ্তার করা হয় বাবলুকে। রাতে ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন ঠাকুরগাঁও গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক ওয়াহেদ আলী। আটক বাবলু রায়ের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা চলমানসহ আরো ২০টি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে জানান তিনি।

বাবলু রায় সদর উপজেলার গড়েয়া ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের মৃত ধীরেন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই রবিউল ইসলাম বলেন, আটক বাবলু ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর ও পঞ্চগড় জেলার কয়েক শ সাধারণ মানুষকে টার্কি মুরগি পালনে আকর্ষণীয় লাভ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তাদেরকে টার্কি মুরগির ডিম ও বাচ্চা সরবরাহ করে নগদ লাখ লাখ  টাকা হাতিয়ে নেন। চুক্তি অনুযায়ী মেয়াদ শেষে ওই সব উদ্যোক্তার পালিত মুরগি নিয়ে কোন ব্যক্তিকে চেক, কাউকে সাদা কাগজে রশিদ দিয়ে পালিয়ে যান। পরে টাকা ও মুরগি হারিয়ে উদ্যোক্তারা বিভিন্ন থানায় মামলা করেন। দীর্ঘদিন ধরে তাকে ধরার চেষ্টা চালায় পুলিশ। অবশেষে শনিবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বীরগঞ্জ জেলায় অভিযান চালিয়ে স্ত্রীসহ আটক করা হয় বাবলু রায়কে।

সংবাদ সম্মেলনে ঠাকুরগাঁও ডিবি পুলিশের পরিদর্শক রূপ কুমার সরকার, প্রেস ক্লাব সভাপতি মনসুর আলী, ডিবির এসআই শামীম, এসআই নবিউল, আবু ঈসা, এএসআই হেলালসহ পুলিশ কর্মকর্তা ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, টার্কি বাবুলকে গ্রেপ্তারের খবর পেয়ে প্রতারণার শিকার ব্যক্তিরা ডিবি অফিসে ভিড় জমাতে শুরু করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা