kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

এক ‘ডিম পাহাড়’, দুই পড়শি প্রশাসন দাবিদার!

আলীকদম ও থানচি উপজেলা প্রশাসনের রেষারেষি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান    

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১০:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এক ‘ডিম পাহাড়’, দুই পড়শি প্রশাসন দাবিদার!

দেশের অন্যতম উচ্চতার পর্যটন স্পট ডিম পাহাড়ের মালিকানা নিয়ে বান্দরবানের দুই পড়শি উপজেলা প্রশাসনের মধ্যে চলছে রেষারেষি।

আলীকদম উপজেলা প্রশাসন বলছে, ভৌগোলিক ম্যাপ অনুযায়ী এটি তাদের উপজেলা সীমানার অন্তর্ভুক্ত। অন্যদিকে উপজেলা পরিষদ ডিম পাহাড়ে কিছু উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে এখন দাবি করা হচ্ছে ‘ডিম পাহাড়’ থানচিরই সম্পদ। এ নিয়ে দুই উপজেলার মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ চললেও কোনো উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাই এ ব্যাপারে গণমাধ্যমে বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

এদিকে ডিম পাহাড়ের কর্তৃত্ব থানচির হাতে চলে যাচ্ছে—এমন অভিযোগ এনে গত বৃহস্পতিবার আলীকদম উপজেলা সদরে মানববন্ধন করা হয়েছে।

আলীকদম-থানচি সড়কের সর্বোচ্চ পয়েন্টটি ক্রাউ ডং (মারমা ভাষায় ক্রাউ মানে ডিম) বা ডিম পাহাড় নামে পরিচিত। পাহাড় চূড়ার আকৃতি ডিমের মতো হওয়ায় এমন নামকরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।

জানা যায়, থানচি ও আলীকদমের সঙ্গে সংযোগ সৃষ্টি করে পর্যটন শিল্পের বিকাশের জন্য ৩৩ কিলোমিটার দীর্ঘ দেশের সবচেয়ে উচ্চতার এই সড়ক পথ নির্মাণ করে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন। ডিম পাহাড়ের অবস্থান আলীকদম ‘জিরো পয়েন্ট’ থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে এবং ডিম পাহাড় পয়েন্ট থেকে থানচি উপজেলা সদরের দূরত্ব ১১ কিলোমিটার। ফলে থানচিবাসীর ধারণা ডিম পাহাড় থানচির অন্তর্ভুক্ত।

তবে আলীকদমের স্থানীয় সাংবাদিক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ দাবি করেন, ডিম পাহাড় চিম্বুক রেঞ্জের (পাহাড়শ্রেণি) অংশ। এই রেঞ্জভুক্ত ক্রিস ডং, ক্রাউ ডং (ডিম পাহাড়) এবং রং রং পাহাড় আলীকদম অংশে পড়েছে। উত্তর-দক্ষিণে বিস্তৃত চিম্বুক রেঞ্জের পশ্চিম ভাগে ডিম পাহাড়ের অবস্থান। তিনি বলেন, ভৌগোলিক নিয়ম অনুযায়ী পাহাড়ের শিরাকে সীমান্ত ধরে সীমানা ভাগ করার নিয়মানুযায়ী পাহাড় শিরার পশ্চিম পাশটি আলীকদম উপজেলায় পড়েছে। ডিম পাহাড়ের অবস্থানও পাহাড় শিরার পশ্চিম পাশে হওয়ায় এটি স্বাভাবিকভাবেই আলীকদমেরই অংশ। এর পূর্ব পাশের অংশটি থানচিতে পড়ে। কাজেই ডিম পাহাড়ের ওপর থানচির দাবি অযৌক্তিক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা