kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

বঙ্গোপসাগরে ফিশিং ট্রলারে দুর্বৃত্তদের হামলা, ১১ জেলে আহত

পাঁচ লাখ টাকার জাল ও ইলিশ লুট

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২২:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বঙ্গোপসাগরে ফিশিং ট্রলারে দুর্বৃত্তদের হামলা, ১১ জেলে আহত

ছবি: কালের কণ্ঠ

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার সময় বাগেরহাটের শরণখোলার এফবি আল্লাহ মালিক মানের একটি ফিশিং ট্রলারে হামলা ও লুটপাট চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। হামলাকারীদের বেদম মারধরে ১১ জেলে আহত হয়েছেন। 

আজ শুক্রবার রাত ৮টার দিকে সমুদ্র থেকে শরণখোলার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে ফিরে আসার পর গুরুতর আহত ছয়জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিসৎসা দেওয়া হয়েছে। ট্রলারে থাকা মাছধরা জাল, আহরিত ইলিশসহ পাঁচ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটে নিয়েছে ওই দুর্বৃত্তরা।
 
ঘটনাটি ঘটেছে ভোর পাঁচটার দিকে পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের কটকা ও নারিকেলবাড়িয়ার কাছাকাছি সমুদ্রে। আহতরা হলেন- ট্রলারের মালিক ও মাঝি মো. বাবুল পহলান (৪০), জেলে আব্দুল হক (৫০), আবু হানিফ (৪৫), ফোরকান তালুকদার (৩০), মেহেদী হাওলাদার (২২), মুসা হাওলাদার (২০)। এদের সবার বাড়ি শরণখোলার বিভিন্ন গ্রামে। এ ঘটনায় শরণখোলা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্তরা।

হামলার শিকার ট্রলারটির ইঞ্জিন চালক মো. রেজাউল গাজী জানান, গত ১৮ সেপ্টেম্বর বন বিভাগ থেকে পাস করে তারা ১১ জেলে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে যান। তারা কটকা ও নারিকেলবাড়িয়ার বাহির সাগরে জাল ফেলার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এমন সময় বরগুনার পাথরঘাটার মৎস্য ব্যবসায়ী রিনা কর্মকারের একটি ট্রলারে ১৫-২০ জন জেলে নামধারী দুর্বৃত্ত এসে জাল ফেলতে বাধা দেয়। এ সময় দুর্বৃত্তরা তাদের ট্রলারে উঠে দা ও লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করে। 

ওই ট্রলারের আঘাতে তাদের ট্রলারটি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় হামলাকারীরা ট্রলারে থাকা তিন লাখ টাকা মূল্যের ইলিশ ধরা জাল, দুই লাখ টাকা মূল্যের ছয় শতাধিক ইলিশ মাছ ও ২০ হাজার টাকার বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

শরণখোলা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মফিজুর রহমান শেখ বলেন, বিষয়টি তিনি মৌখিকভাবে শুনেছেন। লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা