kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

কালিয়াকৈরে হত্যার অভিযোগে স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি পলাতক

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৩:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কালিয়াকৈরে হত্যার অভিযোগে স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি পলাতক

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্বপ্না আক্তারকে (২৫) হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী মামুন মিয়ার বিরুদ্ধে। ঘটনার পর নিহতের স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি পলাতক। স্বপ্না আক্তার উপজেলার গাবতলী এলাকার আলম মিয়ার মেয়ে। এ ঘটনায় বাবা আলম মিয়া বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার গোয়ালচালা এলাকা থেকে পুলিশ নিহত স্বপ্না আক্তারের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে।

নিহতের পরিবার, এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ছয় বছর আগে গোয়ালচালা এলাকার লাল মিয়ার ছেলে মামুন হোসেনের সঙ্গে পারিবারিকভাবে স্বপ্নার বিয়ে হয়। তাঁদের সংসারে চার বছরের একটি ছেলে রয়েছে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই যৌতুকের জন্য স্বপ্নার ওপর বিভিন্ন সময় নির্যাতন করত তাঁর স্বামী ও পরিবারের লোকজন। 

এ বিষয়ে কয়েকবার গ্রাম্য সালিসও করা হয়। দুই বছর আগে নিহতের বাবা কালিয়াকৈর থানায় মামুন মিয়া ও তাঁর পরিবারের অন্য সদস্যের নামে অভিযোগ করেছিলেন। গত দুই মাস আগে স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে স্বপ্না বাবার বাড়ি চলে গেলে স্থানীয় ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যের মধ্যস্থতায় তাঁকে ফিরিয়ে আনা হয়।

নিহতের পরিবারের লোকজনের অভিযোগ, যৌতুকের জন্যই গত বুধবার রাতের কোনো এক সময় তাঁকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। স্বপ্নাকে হত্যার পর তাঁর একমাত্র ছেলে জিসানকে নিয়ে স্বামী মামুন, শ্বশুর লাল মিয়া, শাশুড়ি ও ননদ পালিয়ে গেছেন। খবর পেয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে স্বামীর বাড়ির একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে। 

নিহতের বাবা আলম মিয়া বলেন, ‘মেয়েকে বিয়ে দেওয়ার পর থেকেই যৌতুক হিসেবে একটি মোটরসাইকেল দাবি করে তার স্বামী মামুন। এ ছাড়া বিভিন্ন সময় টাকাও দাবি করে আসছে তার স্বামী। কিন্তু টাকা দিতে না পারায় তার স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও ননদ মিলে বিভিন্ন সময় তাকে নির্যাতন করত। গত বুধবার রাতের কোনো এক সময় স্বপ্নাকে শ্বাসরোধে হত্যার করে তার একমাত্র শিশু ছেলেকে নিয়ে স্বামী, শ্বশুর  ও শাশুড়ি পালিয়ে গেছে।’

কালিয়াকৈর থানাধীন ফুলবাড়িয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুস সালাম বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা