kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

বগুড়ায় মোটরযানের জাল সনদ ছাপানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২১:২৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বগুড়ায় মোটরযানের জাল সনদ ছাপানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫

বগুড়ায় বিআরটিএর মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন, ফিটনেস, ট্যাক্স টোকেন, ট্রাফিক পুলিশের কেস স্লিপ, ইন্স্যুরেন্সসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নকল করে ছাপানোর অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে সদর থানা ফাঁড়ি পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বগুড়া শহরের সাতমাথা, বাদুড়তলা মোড়ের দেলোয়ার কম্পিউটার ও শাপলা সুপার মার্কেটের টুটুল অফসেট প্রিন্টার্স প্রেসে অভিযান চালিয়ে এই কাগজপত্রগুলো উদ্ধার এবং তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। রাত ৮টায় সদর থানা পুলিশের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শাপলা সুপার মার্কেটে ও বাদুড়তলা মোড়ের দেলোয়ার কম্পিউটারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে দেলোয়ার কম্পিউটারের মালিক কাহালু উপজেলার দিপুইল গ্রামের দেলোয়ার হোসেন (২৪), একই উপজেলার আড়োলা গ্রামের হয়রত আলীর পুত্র শফিকুল ইসলাম (৫২), বগুড়া সদরের বাঘোপাড়া মধ্যপাড়ার রতন প্রামানিক (৫০), টুটুল অফসেট প্রিন্টার্স প্রেসের মালিক সদরের আশোকোলা গ্রামের আনোয়ার হোসেন সোহাগ (৫০) ও শিবগঞ্জ উপজেলার সুদামপুরের আব্দুর বাসেদকে (৫০) গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্যমতে থানা পুলিশ সদস্যরা নকল করে তৈরি করা নীলফামারী জেলা ট্রাফিক পুলিশের ৪৫টি, মাদারীপুর জেলার ট্রাফিক পুলিশের ১০টি মোটরযান আইনের প্রসিকিউশন বইয়ের পাতা, গাড়ির রেজিস্ট্রেশনের সনদ ৪টি, ফিটনেস সনদ ১৫টি, ট্যাক্স টোকেন ৩টি, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স সনদপত্র ৪৫টি, মানি রিসিট ৮০টি, বেশকিছু বিমা স্ট্যাম্প, কয়েকটি গোল সিল উদ্ধার করে।

বগুড়া সদর থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান জানান, কম্পিউটারে ডিজাইন করার পর ওই প্রেসে পুলিশ বিভাগের ও মোটরযানের সরকারি কাগজপত্রগুলো ছাপানো হতো। এটি একটি চক্র। এই চক্র দীর্ঘদিন ধরে এই নকলের কারবার করে আসছে। তাদের নামে বগুড়া সদর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা