kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

ফুটপাতের দখল নিল প্রভাবশালীরা

চন্দন দাস, বাঘারপাড়া    

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৮:৩২ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ফুটপাতের দখল নিল প্রভাবশালীরা

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার অন্যতম বৃহৎ খাজুরা বাজারের রাস্তা দখলদারদের কবলে থাকায় দিন দিন রাস্তার জায়গা সংকুচিত হয়ে যান চলাচলে মারাত্মক সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে প্রতিনিয়ত দেখা দিচ্ছে যানজট। ঘটছে দুর্ঘটনাও। ফুটপাতের ওপর নির্মাণসামগ্রী রাখায় পথচারীরা ফুটপাত ব্যবহার করতে পারছে না। স্থানীয় স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থী এবং পথচারীরা বাধ্য হয়ে ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা দিয়ে চলাচল করছে। 

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, খাজুরা বাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে দক্ষিণমুখী বাজারে প্রবেশের ১৮ ফিটের ব্যস্ততম মূল রাস্তার প্রবেশমুখে তোতা ও জসিম ইঞ্জিনিয়ারিং নামে দুটি লেদ কারখানা রাস্তার ওপরে টিনের চালা দিয়ে জনসম্মুখে ঝালাইয়ের কাজ করছে। রাস্তার বিপরীতে খালেক এন্টারপ্রাইজের ফুটপাত দখল করেই চলছে স্যানিটারি ও টাইলস ব্যবসা। আরেকটু সামনের দিকে রাস্তার পশ্চিমপাশে ভাই ভাই সাইকেল স্টোর থেকে শুরু করে জনসেবা হাসপাতাল হয়ে ঋষিপাড়া সীমানা পর্যন্ত টিনের চালা দিয়ে কৃষি পার্টস বিক্রয় ও ইঞ্জিন মেরামতের কাজ চলছে। এর সামনেই রাস্তার উভয় দিকের দোকানিরা রাস্তার ওপরই বিভিন্ন সাইজের বাক্স, আলমারি, কিচেন র‌্যাকসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় আসবাবপত্রের পসরা সাজিয়ে রেখেছে। গত ৬ মাস যাবৎ ঋষিপাড়ার বিপরীতে ফুটপাত ও রাস্তার ওপরেই নির্মাণসামগ্রী রেখে দুই প্রভাবশালী ব্যক্তি বাড়ি ও দোকান নির্মাণ করছেন। সম্প্রতি তার পাশেই রাস্তা ও ফুটপাত দখল করে নির্মাণসামগ্রী রাখার প্রতিযোগিতায় যুক্ত হয়েছেন আরেক প্রভাবশালী। পুরাতন ওয়ালটন শো-রুম থেকে শুরু করে খাদ্যগুদাম পর্যন্ত ফুটপাতের ওপর লেপ, তোষক ও বস্তাভর্তি তুলা সাজিয়ে রাখা হয়েছে। এ ছাড়া বাজারের ভেতরে পাকা রাস্তা বরাবর অধিকাংশ দোকানঘর নির্মাণ করে সে সব দোকানের সামনেই আবার টিনের চালা দিয়ে অ্যালুমেনিয়ামে হাড়ি-পাতিল, ক্রোকারিজ সামগ্রী ও ঝুঁকিপূর্ণ গ্যাস সিলিন্ডার সাজিয়ে ব্যবসা চলছে। রাস্তায় সৃষ্ট যানজট নিরসনে এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো মাথাব্যথা নেই। 

এ রাস্তায় চলাচলকারী ভ্যানচালক মশিয়ার রহমান বলেন, একে তো রাস্তার বেশিরভাগ জায়গা দখল করে রেখেছে। অপরদিকে দোকানের সামনে ভ্যান দাঁড় করিয়ে যাত্রী ওঠানামা করাতে গেলে এসব ব্যবসায়ীদের সাথে তাদের প্রায়ই ঝগড়া ও হাতাহাতি হয়। 

সম্প্রতি স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা তানিয়া খাতুন এ রাস্তা হয়ে স্কুলে আসার পথে একটি ভ্যানকে জায়গা দিতে গিয়ে অন্য একটি ভ্যানের সাথে ধাক্কা খেয়ে আহত হন। এ সময় ওই শিক্ষিকার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়। এতে প্রায় ১৫ দিন তিনি অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। 

এদিকে খাজুরা সরকারি শহীদ সিরাজুদ্দীন হোসেন ডিগ্রি কলেজের একাধিক ছাত্র-ছাত্রী জানায়, এ ব্যাপারে তারা কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করলেও কর্তৃপক্ষ এখনো কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। 

খাজুরা সরকারি শহীদ সিরাজুদ্দীন হোসেন কলেজের উপাধাক্ষ্য আমিনুর রহমান জানান, রাস্তা দখল করে ব্যবসা চালানো দুঃখজনক। ফুটপাত দখল থাকায় শিক্ষার্থীরা বাধ্য হয়ে মূল রাস্তায় চলাচল করছে। ফলে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এসব অবৈধ দখলদারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি। 

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সবদুল হোসেন খান বলেন, ফুটপাট দখল করে ব্যবসা করায় পথচারীদের চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হয় এটা সত্যি! তবে এ ব্যাপারে কৌশলগত কারণে পদক্ষেপ আমি নিতে পারি না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন দলাদলি-গ্রুপিংয়ের কারণে দীর্ঘদিন বাজার কমিটি নেই। যে কারণে এ অবস্থা।

বাঘারপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া আফরোজ সাংবাদিকদের বলেন, আমি এর মধ্যে বাজারটি পরিদর্শন করেছি। এখানে উচ্ছেদ অভিযানের ব্যাপার রয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে। দ্রুত এসব দখলদারির বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা