kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

মুক্তিযোদ্ধাকে দাফনের পর গার্ড অব অনার!

মুক্তিযোদ্ধাদের ক্ষোভ

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৯:২৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুক্তিযোদ্ধাকে দাফনের পর গার্ড অব অনার!

মুক্তিযোদ্ধাদের মৃত্যুর পর দাফনের আগেই পুলিশের গার্ড অব অনার প্রদানের নিয়ম থাকলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থানা এলাকায় সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সুবেদার মেজর মুক্তিযোদ্ধা বাহারাম আলীকে দাফনের পর গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা।

বিশিষ্ট এ মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর পর পুলিশকে গার্ড অব অনার দেওয়ার কথা জানানো হলে সন্ধ্যার পরে গার্ড অব অনার দেয়ার নিয়ম নেই বলে জানায় পুলিশ। এরপর জানাজা ও দাফন শেষে পুলিশ পৌছে গার্ড অব অনার দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জের (ওসি) বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। ওসির এমন আচরণের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধারা সোমবার বিনোদপুরে মানববন্ধন করবেন বলে জানিয়েছেন।

শনিবার ভোর ৪ টার দিকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে প্রায় দুই মাস চিকিৎসাধীন থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের একবরপুর গ্রামের মৃত পায়গাম আলীর ছেলে ও সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সুবেদার মেজর মুক্তিযোদ্ধা বাহারাম আলী ( ৭৬) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

শনিবার সন্ধা ৭ টায় মরহুমের জানাজা ও দাফনের সিদ্ধান্ত হলে শনিবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে নিহতের সহযোদ্ধা ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমান্ডার মশিউর রহমান বাচ্চু শিবগঞ্জ থানার ওসিকে বিষয়টি জানালে জবাবে ওসি মশিউরকে সন্ধ্যার পর গার্ড অব অনার দেয়া হয় না বলে জানান।

তবে সন্ধ্যার পর সেনাসদস্যরা গার্ড অব অনার দেন। জানাজার আগে তোরিকুল আলম আবারো শিবগঞ্জ ওসি ও পুলিশ সুপারকে পুলিশ না পৌছানোর বিষয়টি জানান। পরে জানাজা ও দাফন শেষে পুলিশ পৌছে গার্ড অব অনার দেয়ায় আরো চরম ক্ষোভ দানা বাধে মুক্তিযোদ্ধাদের মনে।

জানাজার আগে দূরদূরান্ত থেকে নিহতের প্রিয়জন,এলাকাবাসী,গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও সহযোদ্ধাদের সাথে উপস্থিত হন শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী রওশন ইসলাম। জানাজা পূর্ব সভায় বক্তব্য রাখেন চৌধুরী রওশন ইসলাম । জানাজা ও সেনাসদস্যদের গার্ড অব অনার এবং তোপধ্বনি শেষে নিহত মুক্তিযোদ্ধাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। দাফন শেষে অনেক পরে পৌছে পুলিশ গার্ড অব অনার প্রদান করে।

মুক্তিযোদ্ধা মসিউর রহমান ও তরিকুল আলম জানান বিলম্বে পুলিশ পৌঁছে দাফন শেষে পুলিশের গার্ড অব অনার দেয়ার বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধারা কষ্ট পেয়েছেন। এর প্রতিবাদে সোমবার বিনোদপুরে মুক্তিযোদ্ধারা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা