kalerkantho

গৃহবধূকে থানায় ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ে, ওসি ও এসআইয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১২:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গৃহবধূকে থানায় ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ে, ওসি ও এসআইয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

পাবনায় তিন সন্তানের জননী এক গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ এবং এরপর থানায় নিয়ে ধর্ষকদের একজনের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার ঘটনার সত্যতা মিলেছে পুলিশের তদন্তে। এ ঘটনায় আজ পাবনা সদর থানার ওসি ওবাইদুল হককে প্রত্যাহার ও এসআই একরামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেয়।

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ওই গৃহবধূর অভিযোগ, রাসেল আহমেদ নামে এক প্রতিবেশী গত ২৯ আগস্ট তাঁকে বাড়িতে নিয়ে এক সহযোগীসহ পালাক্রমে ধর্ষণ করে। দুদিন পর তাকে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে নিয়ে তিন দিন আটকে রাখা হয় এবং সেখানে আরও চার-পাঁচনজন তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পরে ওই গৃহবধূ নিজেই বাদী হয়ে পাবনা থানায় লিখিত অভিযোগ করলে পুলিশ রাসেলকে আটক করে। কিন্তু মামলা গ্রহণ না করে পুলিশ ওই রাতেই থানায় রাসেলের সঙ্গে তার বিয়ে দেয়।

পরে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে থানায় মামলা নেওয়া হয়। ঘটনা তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করে পুলিশ। এ ঘটনায় মামলার আরও দুই আসামিকে বৃহস্পতিবার সকালে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এই নিয়ে এ ঘটনায় মোট চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এর আগে বুধবার পাবনায় থানার মধ্যে ধর্ষকের সঙ্গে ধর্ষিতার বিয়ে দেওয়ার বিষয়টি বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চের নজরে আনেন  সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জামিউল হক ফয়সাল, ব্যারিস্টার গাজী ফরহাদ রেজা ও অ্যাডভোকেট রোহানী সিদ্দিকা। এর জবাবে আদালত বলেছেন, আমরা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছি। আগে দেখি, প্রশাসন কি ব্যবস্থা নেয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা