kalerkantho

পূর্বশত্রুতার জের, প্রতিবন্ধীকে কোপাল সন্ত্রাসীরা

ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৯:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পূর্বশত্রুতার জের, প্রতিবন্ধীকে কোপাল সন্ত্রাসীরা

ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা উপজেলায় পূর্বশত্রুতার জেরে এক প্রতিবন্ধী যুবককে কুঁপিয়ে আহত করছেন স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। গত মঙ্গলবার সকালে উপজেলার পাগুলী গ্রামের শিমুলিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত যুবকের নাম মনিরুজ্জমান (২৪)। সে একই গ্রামের আব্দুর রশীদের ছেলে। বর্তমানে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন ওই যুবক।  

জানা যায়, মনিরুজ্জমান নিজের গরুর ঘাস কাটতে গেলে প্রতিবেশী একই গ্রামের সুলতান, মাজহারুল, রমযান, তফাজ্জলসহ ৮/১০ জনের দুর্বৃক্ত প্রতিবন্ধী যুবকের ওপর হামলা চালায়। রামদা দিয়ে তার মাথায় ও শরীরে কোপাতে থাকে। তার চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। 

স্থানীয়রা জানান, এরা এলাকার চিহিৃত সন্ত্রাসী ও বিভিন্ন মামলার আসামি। স্থানীয় প্রভাব কাটিয়ে বিভিন্ন অপরাধ করলেও এদের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস নেই এলাকাবাসীর। 

জানা যায়, মনিরুজ্জমানের বড় ভাই ডাক্তার ফখরুজ্জমান ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের মেডিসিন বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে গত বছর তাদের বাড়িতে মধ্যেরাতে সুলতানের নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত পেট্রল দিয়ে আগুন লাগিয়ে গবাধিপশু, ধানচাল, নগধ অর্থসহ প্রায় অর্ধকোটি টাকা ক্ষতি করে। এ ব্যাপারে তারাকান্দা থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলার বাদী ডাক্তার ফখরুজ্জমানের চাচা রবিকুল ইসলাম। 

মামলায় তদন্তে তারাকান্দা থানার পুলিশ ঘটনার সত্যতা পায়। মামলায় সুলতান, রমযান, তফাজ্জল, মাজহারসহ বেশ কয়েকজন আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়। মামলার বাদী রবিকুল ইসলাম জানান, বর্তমানে জামিনে এসে মামলা তুলতে সব সময় হুমকি দিয়ে আসছে আমাদের।

ডাক্তার ফখরুজ্জমান জানান, চলমান মামলা চলাকালে এ ধরনের হামলা হওয়া পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় থাকতে হচ্ছে আমাদের। আমি এর সঠিক বিচার চাই। বর্তমানে আমার পরিবারের সদস্যরা জীবন বাঁচাতে আমার সাথে ময়মনসিংহ বসবাস করে। বাড়িতে প্রতিবন্ধী ছোট ভাই তার পরিবার ও বৃদ্ধ মা থাকেন। আমার ভাইকে একা পেয়ে হত্যা করতে চেয়েছিল। এ ব্যাপারে গত মঙ্গলবার রাতে তারাকান্দা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। 

তারাকান্দা থানার ওসি মিজানুর রহমান আকন্দ জানান, এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে । দ্রুত সময়ে আসামিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা