kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

হাটহাজারীতে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগে এলাকাবাসীর প্রতিবাদ

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৯:৩২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হাটহাজারীতে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগে এলাকাবাসীর প্রতিবাদ

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে চক্রান্ত করে মুহাম্মদ এনাম (৩০) নামে এক ব্যক্তিকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে দিয়ে পুলিশ কর্তৃক গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠানোর অভিযোগ উঠেছে। এর প্রতিবাদে এলাকাবাসী গতকাল রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কের চারিয়া নয়াহাট বাজারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুপার আবদুল্লাহ আল মাসুম ঘটনার সঠিক তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। এর আগে এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিতে এনামের পরিবারের পক্ষ থেকে এলাকাবাসীর গণস্বাক্ষর সম্বলিত একটি লিখিত অভিযোগ চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপারের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে।

মুহাম্মদ এনাম মির্জাপুর ইউনিয়নের চারিয়া শিকদার পাড়ার মৃত গোলাপুর রহমানের পুত্র ও পেশায় একজন সিএনজি চালক। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন এনাম কোন ইয়াবা ব্যবসায়ী নয় তাঁকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছে। যে ব্যক্তি কোনোদিন একটা পান সিগারেট খায়নি তাকে ইয়াবা দিয়ে কারাগারে প্রেরণ খুবই দুঃখজনক।

বক্তারা বলেন, জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষ তাঁকে ফাঁসিয়েছে। কারণ গত দুই বছরে অন্তত ৮টি হয়রানিমূলক মামলা দিয়েও যখন এনাম ও তার পরিবারকে দমাতে পারেনি তখন পুলিশের যোগসাজশে এভাবে মিথ্যাম মামলা দিয়ে ফাঁসানো হলো এনামকে।

গত ২৭ আগস্ট হাটহাজারী পৌরসভার মুন্সী মসজিদ এলাকায় রাত সাড়ে আটটায় একটি গ্যারেজে অটোরিকশায় গ্রিজ প্রলেপ লাগাতে গেলে পুলিশ প্রতিপক্ষের ইশারায় ইয়াবা দিয়ে তাকে আটক করে বলে বক্তাদের অভিযোগ। তাঁরা বলেন, আটকের সময় যাত্রীর আসনে ৪-৫ পিচ ইয়াবা পাওয়া গেছে-এ কথা জানিয়ে এনামকে থানায় নিয়ে গেলেও। পরে পরিহিত লুঙ্গী থেকে ৫২পিচ ইয়াবা উদ্ধার করেছে মর্মে এসআই আনিছ বাদি হয়ে মামলা রুজু করে ২৯আগস্ট আদালতে প্রেরণ করেন।

এদিকে মামলায় এজাহারে দেওয়া ১নম্বর স্বাক্ষী মো. শফি (৫৮) সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঘটনার সময় এনামের অটোরিকশার যাত্রীদের আসনে বসার পেছনের অংশ থেকে একটি সিগারেটের প্যাকেট উদ্ধার করতে দেখেছি। যেখানে ৪-৫টি ইয়াবা বডি ছিল। কিন্তু পরে শুনলাম এনামকে ৫২পিচ ইয়াবা বডি দিয়ে মামলা দিয়েছে পুলিশ।’

মামলার ২নম্বর স্বাক্ষী মো. হাকিম (৩৩) বলেন, ‘ঘটনার সময় আমি ছিলামই না। রাত ১২টার দিকে দোকান বন্ধ করতে গেলে এএসআই কফিল আমাকে ডেকে নাম ও ঠিকানা জিজ্ঞেস করে। এ ঘটনার স্বাক্ষী হতে বলেন। আমি অসম্মতি জানালে ধমক দিয়ে স্বাক্ষী হতে বাধ্য করে।’

মানববন্ধন চলাকালে হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মাসুম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তিনি এসময় সাংবাদিকদের বলেন, ‘চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপারের কাছে দেওয়া এনামের পরিবার দেওয়া অভিযোগ সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করা হবে। নিরপরাধ কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন তা নিশ্চিত করা হবে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার বাদি এসআই আনিস বলেন,‘এনামের পরিহিত লুঙ্গীতে ৫২টি ইয়াবা বড়ি পাওয়া গেছে। তিনি মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তাকে রক্ষা করতে পুলিশের বিরুদ্ধে মনগড়া কথা বলা হচ্ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা