kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বংশী নদীতে ভেসে উঠলো নিখোঁজ কিশোরের লাশ

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২১:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বংশী নদীতে ভেসে উঠলো নিখোঁজ কিশোরের লাশ

নিখোঁজ ঘটনার দুদিন পর রবিবার বংশী নদীতে ভেসে উঠেছে কিশোর হৃদয় সাহার (১৬) লাশ। তাকে হত্যা করে লাশের সাথে ইট বেঁধে নদীতে ফেলা হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ সংক্রান্ত আলামত মিলেছে লাশ উদ্ধারের সময়।  ঘটনাটি ঢাকার ধামরাই এলাকার।

সূত্র জানায়, ধামরাই সোমভাগ ইউনিয়নের কান্দিকুল গ্রামের বিশ্বনাথ সাহার ছেলে হৃদয়। শুক্রবার বিকেলে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি। এ বিষয়ে খোঁজাখুঁজির পর থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। এদিকে রবিবার সন্ধ্যায় বংশী নদীর শরীফবাগ-কান্দিকুল এলাকায় বাশেঁর সেতুর  নীচে একটি লাশ ভাসতে দেখেন স্থানীয়রা। তারা পুলিশে খবর দেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিলে তা হৃদয়ের বলে শনাক্ত হয়।

বাবা বিশ্বনাথ সাহা বলেন, 'শুক্রবার বেলা তিনটার দিকে হৃদয়ের মোবাইলে একটি কল আসে। কে বা কারা তাকে বাড়ির বাইরে ডেকে নেয়। এরপর থেকে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছিল। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে তার সন্ধান মেলেনি। এ অবস্থায় থানায় জিডি করা হয়।'

ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ দীপক চন্দ্র সাহা বলেন,'বংশী নদী থেকে হৃদয়ের লাশ উদ্ধার হয়েছে। এখন হত্যা মামলা দায়ের হবে। ইতিমধ্যে পুলিশ অনুসন্ধান কাজ শুরু করেছে খুনিদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তারে।'

স্বজনরা জানান, নদী থেকে লাশ উদ্ধারের পর দেখা গেছে হৃদয়ের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আর লাশটি যাতে ভেসে না থাকে এজন্য শরীরে ইটবাধা ছিল। তাকে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলা হয়েছে এমন আলামত স্পষ্ট। হত্যার উদ্দেশ্যেই হৃদয়কে ফোন করে ডেকে নেয়া হয়েছিল। তবে কারা এবং কেন তাকে হত্যা করেছে সে বিষয়ে ধারণা দিতে পারেননি স্বজনরা। স্থানীয় কোন বিরোধ হত্যার নেপথ্যে কাজ করত পারে বলে ধারণা পুলিশের। আবার কিশোরদের মাঝে তর্ক অথবা আর্থিক লেনদেনে  এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে। পুলিশ সকল বিষয়েই খোঁজ নিচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা