kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চাঁদার টাকা না পেয়ে ঝালকাঠিতে প্রবাসীর বাড়ি ভাঙচুর

১১টি মোটরসাইকেল জব্দ, এক পুলিশ সদস্য আহত

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৭:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদার টাকা না পেয়ে ঝালকাঠিতে প্রবাসীর বাড়ি ভাঙচুর

দাবিকৃত চাঁদার টাকা না পেয়ে এক প্রবাসীর বাড়িতে ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। আজ শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে সদর উপজেলার বেশাইন খান গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে ১১টি মোটরসাইকেল জব্দ করেছে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে দুর্বৃত্তদের ধস্তধস্তি হয়। এতে এক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।

পুলিশ ও ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, বেশাইন খান গ্রামের সোহরাব মোল্লার ছেলে সাইফুল ইসলাম মোল্লা দীর্ঘ দিন ধরে দুবাই থাকেন। সম্প্রতি তিনি পরিবার পরিজন নিয়ে থাকার জন্য গ্রামে একটি পাকা ভবন নির্মাণ করেন। ভবন নির্মাণের সময় স্থানীয় কয়েকজন যুবক ফোন করে তার কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। টাকা না দিলে ভবন করতে দেওয়া হবে না। হুমকি উপেক্ষা করেও তিনি ভবনটি নির্মাণ করেন।

বর্তমানে ঘরে বাবা মা ও পরিবারের অন্যরা বসবাস করেন। ঘরের সামনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়। চাঁদার টাকা না একদল দুর্বৃত্ত সকাল ১১টার দিকে তাদের বাড়িতে প্রবেশ করে। এদের মধ্যে দুইজন গিয়ে প্রথমে সিসি ক্যামেরা খুলে ফেলেন। পরে অন্যরা মোটরসাইকেলে এসে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে  ঘরের সামনে ভাঙচুর করে। তারা ঘরের ভেতর সাজসজ্জার বাতি ভেঙে ফেলে। এ সময় প্রবাসীর পরিবারের সবার মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তারা থানায় ফোন করলে পুলিশ গিয়ে হামলাকারীদের ধাওয়া করে। এ সময় হামলাকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তধস্তি হয়। এতে এক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গেলে হামলাকারীরা চলে যায়। ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারীদের ১১টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

প্রবাসী সাইফুলের বাবা সোহরাব মোল্লা অভিযোগ করেন, হামলাকারীদের হাতে অস্ত্র ছিল। যার ফলে কেউ সামনে বের হয়ে প্রতিবাদ করতে সাহস পাইনি। এদের মধ্যে অনেককে দেখলে চিনতে পারবো। আমার ছেলের কাছে তারা এক লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছিল। সেই টাকা না দেওয়ায় তারা হামলা ভাঙচুর করেছে। এর পরেও টাকা না দিলে তারা আমাদের মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে গেছে। এ ঘটনায় আমরা থানায় মামলা দায়ের করবো। 

ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহমুদ হাসান বলেন, যারা হামলা করেছে, তাদের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ দিলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা