kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কালের কণ্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর

চাটমোহরে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মিললেও খোঁজ নেই মায়ের

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২১:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাটমোহরে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মিললেও খোঁজ নেই মায়ের

পাবনার চাটমোহরে মুক্তি বেগম (৩০) নামে এক মানসিক প্রতিবন্ধী গৃহবধূ তার ৬ বছরের সন্তানসহ গত এক সপ্তাহ ধরে নিখোঁজ ছিল। এ বিষয়ে গত ৩ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) কালের কণ্ঠে একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পর পরিবারের সদস্যরা শিশুটির সন্ধান পেলেও মায়ের খোঁজ এখনও পায়নি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহী চন্দ্রিমা থানা হেফাজতে থাকা শিশুকে নিজের জিম্মায় নেন তার বাবা সাজেদুল ইসলাম স্বপন। ছেলেকে পেয়ে স্বস্তি পেলেও স্ত্রীর সন্ধানে এখন তিনি ছুটে যাচ্ছেন বিভিন্ন জায়গায়।

জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে মানসিক প্রতিবন্ধী গৃহবধূ চাটমোহরের নিজ বাড়ি থেকে সন্তানসহ নিখোঁজ হবার পরে গত মঙ্গলবার কালের কণ্ঠে একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পরে রাজশাহী নগরীর চন্দ্রিমা থানা পুলিশের নজরে আসে বিষয়টি। পরে থানা কর্তৃপক্ষ তাদের হেফাজতে থাকা শিশুটিকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করতে চাটমোহর থানায় বার্তা প্রেরণ করে। এরপর চাটমোহর থানা পুলিশ শিশুটির পরিবারের সাথে যোগাযোগ করে রাজশাহী চন্দ্রিমা থানায় গিয়ে শিশুটিকে নিয়ে আসতে বলেন। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সকালে সেখানে গিয়ে শিশুটির পিতা সাজেদুল ইসলাম তার বাচ্চার জন্ম নিবন্ধনসহ তার পরিচয় পত্রাদীসহ বেশ কিছু প্রমাণাদী উপস্থাপনের পর বিকেলে তার কাছে শিশুটি হস্তান্তর করে থানা পুলিশ।

সন্তানকে কাছে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে সাজেদুল ইসলাম জানান, সত্যিই আজ আমি ভীষণ খুশি। তবে আরো খুশি হবো যদি আমার মানসিক প্রতিবন্ধী স্ত্রীকে খুঁজে পাই। থানা পুলিশ ও কালের কণ্ঠ পত্রিকার সাংবাদিকের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশও করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত এক সপ্তাহ আগে চাটমোহর উপজেলার উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের জগতলা নতুনপাড়া গ্রামের রাজমিস্ত্রি সাজেদুল ইসলাম স্বপনের মাসিক প্রতিবন্ধী স্ত্রী-সন্তানসহ নিখোঁজ হয়। তার বাবার বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুর থানার পাঁচআনি গ্রামে। অনেক খোঁজা খুজি করে স্ত্রী ও ছেলের সন্ধান না পেয়ে তার স্বামী রবিবার সন্ধায় চাটমোহর থানায় একটি জিডি করেন। অবশেষে তার সন্তানের খোঁজ পাওয়া গেলেও তার স্ত্রীর সন্ধান পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা