kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ছাত্রীর শরীরে হাত দিয়ে বৃদ্ধ গেলেন জেলে

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৮:৩৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ছাত্রীর শরীরে হাত দিয়ে বৃদ্ধ গেলেন জেলে

অভিযুক্ত নূর নবী

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মো. নূর নবী (৭০) নামে এক ব্যক্তিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন। হাতেনাতে ধরা পড়ার পর বৃদ্ধ নূর নবী নোয়াখালী সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আরিফুল ইসলামের কাছে দায় স্বীকার করে বক্তব্য দেন। নূর নবীর বিরুদ্ধে বাস স্টপেজে দাড়িয়ে নারী যাত্রীদের হয়রানির আরো অভিযোগ রয়েছে।

সূত্র জানায়, বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শহরের মধ্যে বাসে ওঠার সময় বৃদ্ধ নূর নবী ছাত্রীদের শরীরে হাত দেওয়ার চেষ্টা চালান। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীরা তাকে ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে যান। প্রক্টর অধ্যাপক ড. নেওয়াজ মো.বাহাদুরের রুমে নিয়ে তাকে আটকে ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ১৩তম ব্যাচের এক ছাত্রীকে সোমবার একই ব্যক্তি হয়রানি করেন বলে জানা যায়। ওই ছাত্রী  উপস্থিত হয়ে প্রক্টর  বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। প্রক্টর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সুধারাম মডেল থানায় বিষয়টি জানান।

ছাত্রী হয়রানির অভিযোগ পেয়ে সুধারাম মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে এবং অভিযুক্ত বৃদ্ধকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে প্রেরণ করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করার পর নূর নবী দায় স্বীকার করলে দণ্ডবিধির ১৮০৯/৬০৯ ধারায় ৬ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন। গ্রেপ্তারকৃত নূর নবী প্রথমে অসংলগ্ন আচরণ করে নিজেকে পাগল প্রমাণের চেষ্টা করেন। পরে ধারাবাহিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানান, বাবার নাম আবুল কাশেম, বাড়ি অশ্বরিয়া ইউনিয়নের মাছিমপুর গ্রামে।

ঘটনার শিকার ছাত্রী কালের কণ্ঠকে বলেন, 'সোমবার সকাল নয়টার দিকে শহর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গামী বাসে ওঠার মুহূর্তে হয়রানির শিকার হই। সুধারাম মডেল থানার সামনে অবস্থান করা বাসটিতে তখন তুলনামূলক কম শিক্ষার্থী ছিলেন। বয়স্ক লোকটি প্রথমে বলে 'মা কিছু টাকা দেন।' ভাঙতি টাকা না থাকায় আমি ওনাকে বলি- এখন নাই মাফ করেন। পরে লোকটা আমার হাত ধরে রাখে শক্ত করে। কোনোরকম হাতটা ছাড়িয়ে বাসে উঠতে গেলে লোকটা পেছন থেকে খুব বাজেভাবে শরীর স্পর্শ করেন। আমি পেছন ফিরে বললাম-সমস্যা কি আপনার ? তখন তিনি লুঙ্গি তুলে বাজে অঙ্গভঙ্গি করতে থাকে। আমাকে বাস থেকে নামতে দেখে লোকটি দৌড়ে রাস্তার বিপরীতে লাল সবুজ পরিবহন কাউন্টারের ভেতর ঢুকে পড়েন। মোবাইল ফোনে ছবি তুলতে দেখে তিনি বাস কাউন্টার থেকে বের হয়ে মুখ ঢেকে পালানোর চেষ্টা করেন। নোয়াখালী পৌর শহরের হসপিটাল রোডের দিকে দৌড় দেন তিনি।'

এর আগে ঘটনার শিকার হয়ে শিক্ষার্থী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। তিনি ঘটনা উল্লেখ করে লিখেন- 'আপুরা সাবধানে থাকবেন। আজ আমার সাথে হয়েছে, কাল আপনাদের সাথে হতে পারে। আমরা কখনোই এসব অন্যায়ের সুবিচার পাবোনা। এসব থামবেনা, চলছে, চলবে,চলতেই থাকবে। আল্লাহ সেফ রাখুন সবাইকে।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা