kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বাঘায় পুলিশের কাছ থেকে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলার আসামি ছিনতাই!

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২২:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাঘায় পুলিশের কাছ থেকে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলার আসামি ছিনতাই!

রাজশাহীর বাঘায় বিএনপির সভাস্থলের গেটে পুলিশের হাত থেকে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলার আসামি ছিনতাই করে নিয়েছে কতিপয় বিএনপি কর্মী-সমর্থক। ছিনতাইকৃত আসামির নাম শামীম সরকার। তার বাড়ি উপজেলার বামনডাঙ্গা গ্রামে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে পৌর বিএনপির সভাপতি কামাল হোসেনের বাড়ির আঙ্গিনায় বিএনপির বর্ধিতসভা  শেষে এই ঘটনা ঘটে। 

স্থানীয় লোকজন জানান, মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত উপজেলার বাজুবাঘা নতুন পাড়া এলাকায় বাঘা পৌর বিএনপির সভাপতি কামাল হোসেনের বাড়ির আঙ্গিনায় বিএনপির বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভার শেষ মূহুর্তে বাড়ির গেটে গিয়ে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি শামীম সরকারকে হাতে-নাতে গ্রেপ্তার করে বাঘা থানার উপপুলিশ পরিদর্শক (এসআই) সইবুর রহমান ও সহকারী উপপুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) শাহ্ আলম। এ সময় গেটে থাকা দলীয় অন্যান্য কর্মী-সমর্থকরা শামীমকে পুলিশের হাত থেকে ছিনিয়ে নেয়।

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে উপপুলিশ পরিদর্শক সইবুর রহমান এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, তার হাত থেকে আসামি ছিনিয়ে নেওয়া হয়নি। তিনি তার পরিহিত পাঞ্জাবি ধরেছিলেন। এ সময় পাঞ্জাবি ছিঁড়ে আসামি পালিয়ে যায়।

বাঘা থানা পুলিশের একটি সূত্রসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ছাত্রনেতা জানান, শামীম রাজশাহী জেলা ছাত্র দলের যুগ্ম আহ্বায়ক। তার পিতার নাম বাচ্চু সরকার। ২০১৮ সালে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কটূক্তিমূলক কথাসহ অশ্লীল ছবি ছেড়ে আলোচিত হন। এ ঘটনায় তার নামে বাঘা থানায় একটি রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা হয়। সেই মামলায় আদালত থেকে ওয়ারেন্ট ছিল তার নামে। শামীম পলাতক তারেক রহমানের ফেসবুক ফ্রেন্ড বলেও একাধিক সূত্র নিশ্চিত করে।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, সভাস্থলে একজন ওয়ারেন্টধারী আসামি আছে খবর পেয়ে দু’জন অফিসার পাঠিয়েছিলাম। অনেকেই আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার কথা বলছে। তিনি বিষযটি তদন্ত করে দেখবেন বলে জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা