kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আদালত চত্বরে আসামিদের চিত্কার

এমপিপুত্র সুনামের নাম কেন নাই চার্জশিটে?

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২১:৪৮ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



এমপিপুত্র সুনামের নাম কেন নাই চার্জশিটে?

‘এটা অন্যায়, এটা অবিচার। যে করছে সে কেনো ৭ নম্বর, সুনাম দেবনাথ কেনো আসামি নাই, সুনাম দেবনাথ হত্যার নির্দেশদাতা, সে কেনো আসামি না, বাদশা হত্যার কেন বিচার নাই? এটা অবিচার, এটা অন্যায়।’

বরগুনায় আলোচিত রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দেওয়ার পর কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়ার সময় মামলার আসামি রিফাত ফরাজী, তার ভাই রিশান ফরাজীসহ অন্য কয়েকজন আসামি চিত্কার করে এসব কথা বলছিলেন। এর পরপরই পুলিশ দ্রুত তাদের প্রিজন ভ্যানে তুলে বরগুনা কারাগারে নিয়ে যায়। 

মামলার ধার্য দিনে আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রিফাত হত্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ১৪ আসামিকে বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচার বিভাগীয় হাকিম মো. সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে হাজির করা হয়। বিচারক আসামিদের মধ্যে অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছয়জনকে যশোর শিশু-কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে এবং বাকিদের বরগুনা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আগামী ১৮ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী দিন ধার্য্য করা হয়েছে।

সকাল ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে আদালত চত্বরে রাখা প্রিজন ভ্যানে ওঠার সময় মামলার এক নম্বর আসামি রিফাত ফরাজী ও তার ভাই রিশান ফরাজীসহ অন্য আসামিরা চিত্কার করে রিফাত হত্যাকাণ্ডের নির্দেশদাতা হিসেবে সুনাম দেবনাথের নাম বলেন। এ ঘটনার একটি ভিডিও কালের কণ্ঠের হাতে এসেছে। প্রায় দুই মিনিটের এই ভিডিওতে দেখা যায়, প্রিজন ভ্যানে তোলার পরও আসামিরা চিত্কার করে সুনামের কথা বলে যাচ্ছিল।

সুনাম দেবনাথ বরগুনা ১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ধীরেন্দ্র চন্দ্র দেবনাথের ছেলে। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক। রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার পর থেকেই নানা কারণে সুনাম আলোচনায় আসেন।

গত ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাতকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ওই দিন রাতে রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ ১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে সেখানে মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করা হয়েছিল। এ ঘটনার পর সুনাম দেবনাথ ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে মিন্নিকে খলনায়ক বানানোর চেষ্টা করেন। তিনি লিখেছিলেন, এখন যাকে মিডিয়া হিরো বানাচ্ছে, সে-ই এ ঘটনার ভিলেন হতে পারে।

এরপর গত ২ জুলাই মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহমেদ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ড ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন। এরপর গত ১৩ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করে রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ পুত্রবধূর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। তিনি মিন্নির গ্রেপ্তার দাবি করেন। সেদিন সংবাদ সন্মেলনের আগে পরে সুনাম দেবনাথ বরগুনা প্রেস ক্লাবে গিয়েছিলেন। পরদিন মিন্নিরকে গ্রেপ্তারের দাবিতে প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছিল। সুনাম দেবনাথ ওই কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে মামলার তদন্তের স্বার্থে রিফাতের বাবার অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখতে পুলিশকে অনুরোধ করে বক্তব্য দিয়েছিলেন।

এরপর রিফাত হত্যা মামলার তদন্ত নতুন মোড় নেয়। ১৬ জুলাই আসামি শনাক্তের কথা বলে মিন্নিকে তাঁর বাবার বাসা থেকে পুলিশ লাইনসে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে টানা প্রায় ১২ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে তাকে রিফাত হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরদিন ১৭ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচার বিভাগীয় হাকিম আদালতে সোপর্দ করে সাত দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ। আদালতে মিন্নির পক্ষে কোনো আইনজীবী দাঁড়াননি। সুনামের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ হুমকির কারণেই তার পক্ষে আইনজীবী দাঁড়াননি বলে অভিযোগ করেন মিন্নির বাবা। রিমান্ডের তৃতীয় দিন শেষে মিন্নিকে গোপনে জ্যেষ্ঠ বিচার বিভাগীয় হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে মিন্নি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। বিচারক যখন তার খাসকামরায় মিন্নির জবানবন্দি গ্রহণ করছিলেন তখন মিন্নির বাবা মোজ্জাম্মেল হোসেন কিশোর আদালত প্রাঙ্গণে চিত্কার করে বলছিলেন, ‘এ সব কিছুই শম্ভু বাবুর খেলা। তার ছেলে সুনাম দেবনাথকে সেভ করার জন্য আমার মেয়েকে বলি দেওয়া হচ্ছে।’

রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার পর থেকেই মিন্নির বিরোধিতা শুরু করেন। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের ভায়রার দুই ছেলে রিফাত ফরাজী ও রিশান ফরাজীর বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। এরপর আর তাদের বিরুদ্ধে সুনামকে অবস্থান নিতে দেখা যায়নি। হঠাৎ করেই আদালত চত্বরে সুনাম দেবনাথের বিরুদ্ধে চিত্কার করে রিফাত-রিশানের এমন বক্তব্য দেওয়ার ব্যাপারে অনেকেই হতবাক হয়েছেন। 

অসমর্থিত সূত্র বলছে, রিফাত হত্যা মামলায় মিন্নিকে প্রধান আসামি এবং রিফাত ও রিশানকে আসামির তালিকায় শেষ দিকে রাখার কথা ছিল। তাই শুরু থেকেই রিফাত ও রিশান মামলার ব্যাপারে কোনো কথা বলেননি। তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতেও তেমন কিছু আসেনি। কিন্তু প্রধান আসামি নয়ন নিহত হওয়ায় রিফাতকে এক নম্বর আসামি করা হয়েছে অভিযোগপত্রে। 

হাইকোর্টে মিন্নির প্রথম জামিন শুনানির সময় পুলিশ প্রশাসনকে তার ব্যাপারে অতিউত্সাহী বলে সতর্ক করে দিয়েছিলেন আদালত। আদালত মিন্নিকে জামিনের আদেশ দেন। এরপরই মিন্নিকে পরিকল্পনাকারী হিসেবে ৭ আসামি করে পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

মঙ্গলবার আদালত চত্বরে আসামিরা চিত্কার করে যে বক্তব্য দিয়েছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে সুনাম দেবনাথ বরগুনার সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপনারা জানেন আসামিদের একটি অংশ আমাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ। ওই প্রতিপক্ষের ছত্রচ্ছায়ায় এরা এসব অপকর্ম করে বেড়াত। তাদের শেখানো কথাই এখন আসামিরা বলে আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার চেষ্টা করছে। আপনারা খোঁজ নিয়ে দেখুন, ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে কেউ কোথাও আমার সম্পৃক্ত থাকার কথা বলেছে কিনা। যদি সেখানে তারা এসব না বলে থাকে তবে এখন এমন বক্তব্যের মানে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন।’ 

৬ জনকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর আদেশ

মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম জানান, অভিযুক্তদের মধ্যে ছয়জনের বয়স ১৮ বছরের কম হওয়ায় আদালত তাদের যশোর শিশু-কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। তারা হলো রিশান ফরাজী, তানভীর, চন্দন, অলি, নাজমুল ও শ্রাবণ। আর বাকি অভিযুক্তদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

তিনি আরো বলেন, এ মামলায় অভিযুক্ত চন্দন ও টিকটক হৃদয়ের জামিনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। তবে এই আদালতে মামলার মূল নথি না থাকায় কোনো আদেশ দেননি বিচারক। এ ছাড়া অভিযুক্ত শ্রাবণের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের জন্য আদালতে আবেদন করা হয়েছে। কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে যথাযথ প্রক্রিয়ায় আবেদন করার জন্য আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা