kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ধুনটের সেই 'পশু পুত্র'র বিরুদ্ধে তিন মামলা

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৯:৪৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ধুনটের সেই 'পশু পুত্র'র বিরুদ্ধে তিন মামলা

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় নেশার টাকা না পেয়ে পুড়িয়ে মাতৃ-হন্তারক সোহানুর রহমান খোকনের (২৯) বিরুদ্ধে হত্যা, অস্ত্র উদ্ধার ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। এর মধ্যে নেশার টাকা না পেয়ে মাকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার বাদী হয়েছেন নিহতের বড় ছেলে জাকির হোসেন। এ ছাড়া অস্ত্র উদ্ধার ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলার বাদী হয়েছেন ২ পুলিশ কর্মকর্তা। 

মঙ্গলবার দুপুরের দিকে সোহানুর রহমান খোকনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে ধুনট থানা থেকে বগুড়া আদালতে পাঠানো হয়েছে। সোহানুর রহমান উপজেলার চিকাশি ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের আব্দুস সামাদ মন্ডলের ছেলে। মাদকদ্রব্য কেনার টাকা না পেয়ে রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সোহানুর রহমান খোকন তার মা খুকি বেগমকে (৬৫) হাত-পা বেঁধে শরীরে পেট্রল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়ে হত্যা করেছে। সোমবার রাতে তার বিরুদ্ধে থানায় পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করা হয়। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, সোহানুর রহমান খোকন প্রায় ৩ বছর ধরে বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য সেবনে নেশাসক্ত হয়ে পড়ে। মাদকদ্রব্য কেনার টাকার জন্য মা-বাবাকে প্রায়ই নানাভাবে নির্যতন করত। ছেলের মাদক কেনার টাকার যোগান দিতে বাবা ৬ বিঘা জমি বিক্রি করেছে। প্রতিদিন ছেলের টাকা জোগাড় করতে একসময়ের স্বচ্ছল বাবার সংসারে অভাব দেখা দেয়। তাই ছেলের চাহিদা অনুযায়ী মাদকদ্রব্য কেনার টাকা দিতে পারছিলেন না তার বাবা।

সর্বশেষ গত রবিবার বিকেলে বাবার কাছে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করেন সোহানুর। ঘরে টাকা নেই বলে জানান বাবা। টাকা আদায়ে বাবাকে জিম্মি করতে ঘরের খুঁটির সঙ্গে জিআই তার দিয়ে মা খুকি বেগমকে (৬৫) বেঁধে ফেলেন নেশাসক্ত সোহানুর। স্ত্রীর অসহায় অবস্থা দেখে টাকা জোগাড়ে প্রতিবেশীদের কাছে ছুটে যান বৃদ্ধ আব্দুস সামাদ। তিনি ফেরার আগেই উন্মত্ত ছেলে মোটরসাইকেলের ট্যাংকি থেকে পেট্রল বের করে মায়ের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেন। 

এ সময় ঘরে বাজানো হয় উচ্চশব্দের গান। সন্ধ্যার দিকে বাড়িতে ফিরে আব্দুস সামাদ দেখেন, প্রতিবেশীরা তার স্ত্রীর ঝলসানো দেহটা কোনোরকমে বের করেছেন। রবিবার হাসপাতালে নেওয়ার পথে সন্ধ্যা ৭টার দিকে মারা যান এই হতভাগ্য মা। প্রতিবেশীরা পালানোর সময় সোহানুরকে ধরে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। 

এদিকে মাতৃ-হন্তারক সোহানুর রহমান খোকনকে নিয়ে সোমবার রাতে অভিযানে বের হন থানা পুলিশ। এ সময় সোহানুরের বাড়িতে তল্লাশি করে ঘরের ভেতর বাক্সে রক্ষিত ১৫ পিস ইয়াবা ও দেশীয় তৈরি ২টি অস্ত্র উদ্ধার করেছে। এই অস্ত্র ২টি সোহানুর তার মা-বাবাকে ভয় দেখিয়ে নেশাদ্রব্য কেনার টাকা আদায়ের জন্য ব্যবহার করত।  

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মাকে পুড়িয়ে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছে সোহানুর রহমান খোকন। জবানবন্দি গ্রহণের জন্য তাকে বগুড়া আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা